গ্রামীণফোন ইন্টারনেট প্যাকেজ ও অ্যাক্টিভেশন কোড সমূহ – ২০২০

নতুন আঙ্গিকে ও হালনাগাদকৃত দামে ইন্টারনেট প্যাকেজ চালু করেছে গ্রামীণফোন। এর সাথে অধিকতর ডেটা ভলিউম সমৃদ্ধ প্যাকেজ সহ ডেটা সার্ভিসে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনছে দেশের বৃহত্তম এই মোবাইল অপারেটর কোম্পানি।

বর্তমানে গ্রামীণফোনে মূলত সবই ফোরজি ইন্টারনেট প্যাকেজ পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো সবই আপনি টুজি/ থ্রিজি/ফোরজি নেটওয়ার্কে ব্যবহার করতে পারবেন। আর ফ্লেক্সি প্ল্যান তো রয়েছেই

গ্রামীণফোন ইন্টারনেট প্যাকেজ ও অ্যাক্টিভেশন কোড সমূহ ২০২০ সাল

(জুন মাসে এগুলোর দাম বেড়েছে। পোস্টের শেষ ছকে এক্টিভেশন কোড এবং নতুন দাম দেখুন)

১.৫ জিবি (মেয়াদ ৩০ দিন) প্যাকেজের বর্তমান দাম ২৪৭ টাকা। নতুন ১ জিবি ইন্টারনেট প্যাকেজের দাম ১৮৯ টাকা যা কিছুদিন আগে ছিলনা। এটির মেয়াদও ৩০ দিন। আরও আছে ৫ এমবি ২.৬২ টাকা (৩দিন), ২ এমবির প্যাকেজ এখন আর সাইটে দেখাচ্ছেনা, ৩৫০ এমবি ৩৩ টাকা (৩ দিন), ২৬ এমবি হোয়াটসঅ্যাপ ২.৬১ টাকা (৩ দিন), ৫জিবি ৩৯৯ টাকা (৩০ দিন), ১ জিবি ৮৯ টাকা (৭ দিন), ৩জিবি ২৮৯ টাকা (৩০দিন), ২জিবি ৫৪ টাকা (৩ দিন) প্রভৃতি প্যাক।

সকল জিপি ইন্টারনেট প্যাকেজ এখানে তুলে দেয়া হল। শেষের ছকে অ্যাক্টিভেশন কোড দেয়া আছে। বড় করে দেখতে চাইলে ছবির ওপর ক্লিক করুন।

রেগুলার জিপি ইন্টারনেট প্যাকেজ সমূহ (জুন মাসে এগুলোর দাম বেড়েছে। পোস্টের শেষ ছকে এক্টিভেশন কোড এবং নতুন দাম দেখুন)

জিপি ইন্টারনেট অফার প্যাকেজ সমূহ (জুন মাসে এগুলোর দাম বেড়েছে। পোস্টের শেষ ছকে এক্টিভেশন কোড এবং নতুন দাম দেখুন)

জিপি ইন্টারনেট ৪জি স্পেশাল প্যাকেজসমূহ (জুন মাসে এগুলোর দাম বেড়েছে। পোস্টের শেষ ছকে এক্টিভেশন কোড এবং নতুন দাম দেখুন)

জিপি ইন্টারনেট প্যাকেজ অ্যাক্টিভেশন কোড (নতুন দাম – জুন ২০২০)

এছাড়াও যেকোনো সময় যেকোনো প্যাকেজ চালু করার জন্য ডায়াল করুন *১২১*৩#

শর্তাবলীঃ

  • ইন্টারনেট প্যাক USSD, SMS, IVR, MyGP, Easynet, WoW Box, গ্রাহক সেবা, জিপি ওয়েবসাইট এবং অন্য যেকোনো গ্রামীণফোন অনুমোদিত চ্যানেলগুলির মাধ্যমে সক্রিয় করা যেতে পারে ।
  • অটোরিনিউ সুবিধাটি বাই ডিফল্ট OFF থাকে (শুধুমাত্র BS Pre & Post paid গ্রাহক ছাড়া)। তবে গ্রাহকরা চাইলে অটোরিনিউ সুবিধাটি ON করে নিতে পারবে প্যাক একটিভ করার সময়।
  • প্যাক একটিভ করার পরে অটোরিনিউ চালু করতে “ON” লিখে 25000 এ SMS অথবা ডায়াল করতে হবে *121*3042#। এ ছাড়াও কাস্টমার চাইলে অটোরিনিউ বন্ধ করতে পারে “OFF” লিখে 25000 এ SMS করে অথবা *121*3043# ডায়াল করে।
  • ইন্টারনেট ব্যালেন্স চেক করতে ডায়াল করুন *121*1*4#।
  • ইন্টারনেট ভলিউম শেষ হবার পর ইন্টারনেট ব্যবহারে কাস্টমার এর টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • মেয়াদ শেষ হবার আগেই যদি কাস্টমার একই প্যাক আবার ক্রয় করে অথবা সফল ভাবে অটোরিনিউ হয় তাহলে অব্যবহৃত ইন্টারনেট ভলিউম পরবর্তী প্যাক এর সাথে যোগ হবে।
  • গ্রাহকের সম্মতিক্রমে চালু করা অটো রিনুয়াল ইন্টারনেট প্যাকগুলোর নবায়ন, ইন্টারনেট ভলিউম অথবা মেয়াদ শেষ হবার উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হবে (ভলিউম অথবা মেয়াদ যেটি আগে শেষ হয়)
  • ইন্টারনেট প্যাক বন্ধ করতে ডায়াল *১২১*৩০৪১#
  • কাস্টমারের ইন্টারনেট ভলিউম কম থাকাকালীন একই সময়ে যদি কাস্টমারের একাধিক এপলিকেশন সচল থাকে তাহলে টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) রেটে চার্জ হতে পারে। অতএব, ইন্টারনেট ভলিউম কম থাকাকালীন একটি এপলিকেশন থেকে আরেকটি ব্যবহার করার সময়ে আগের এপলিকেশনটি বন্ধ করে নিন
  • হাই স্পিড ইন্টারনেট এর জন্য কাষ্টমেরকে 3G ফোন ব্যবহার করতে হবে এবং অবশ্যই 3G নেটওয়ার্ক এর ভিতর থাকতে হবে।
  • হ্যান্ডসেট, ওয়েবসাইট ভিসিট, BTS থেকে দূরত্ব, ব্যবহারের সময় এই সব কিছুর উপরে ইন্টারনেটের অ্যাভারেজ স্পিড নির্ভর করে ।
  • ক্যাম্পেইন প্যাকের ইন্টারনেট ভলিউম রেগুলার ইন্টারনেট প্যাকের ভলিউমের আগে ব্যবহৃত হবে।
  • এই প্যাক গুলো skitto গ্রাহকদের জন্য প্রযোজ্য নয়
  • ইন্টারনেট স্পিড চেক করতে পারবেন https://www.speedcheck.org/ এই লিংক ভিজিট করে।
  • শর্তাবলী ডাউনলোড করুন পিডিএফ ফরম্যাট এ
  • ইন্টারনেট প্যাক বা অফার কেনার সময় আপনি যদি বিকাশ বা কার্ড এর মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতে চান তাহলে মনে রাখবেন প্রিপেইড কাস্টোমারদের জন্য লিমিট হলো ১০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা আর পোস্টপেইড কাস্টমারদের জন্য ১০ টাকা থেকে ৫০০০০ টাকা।
  • ইন্টারনেট প্যাক বা অফার কেনার সময় আপনি যদি বিকাশ বা কার্ড এর মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতে চান তাহলে মনে রাখবেন আপনার যদি পূর্ববর্তী কোনো বকেয়া বা ইমার্জেন্সি ব্যালান্স নেয়া থাকে তাহলে সেই বকেয়া টাকা আগে কাটা হবে। সেক্ষেত্রে ইন্টারনেট প্যাক বা অফারটি এক্টিভেট হবে না।

জিপি সোশ্যাল প্যাক

  • যদি মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কাস্টমারের সোশ্যাল ইন্টারনেট ভলিউম শেষ হয়ে যায় এবং কাস্টমারের অন্য কোনো রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ ভলিউম না থাকে, তাহলে ইন্টারনেট ব্যবহারে কাস্টমার এর টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • সোশ্যাল প্যাক চালু থাকা অবস্থায় কাস্টমার ফেইসবুক ছাড়া অন্য যেকোনো সাইট ব্যবহার করলে এবং ঐসময় কাস্টমার এর অন্য রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ কোনো ইন্টারনেট ভলিউম না থাকলে ইন্টারনেট ব্যবহারে কাস্টমারের টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • মেসেন্জার থেকে ভয়েস এবং ভিডিও কল এই প্যাক এর অংশ নয়। মেসেন্জার থেকে ভয়েস এবং ভিডিও কল করলে ঐসময় কাস্টমার এর অন্য রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ কোনো ইন্টারনেট ভলিউম না থাকলে কাস্টমারের টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • গ্রাহক প্রক্সি ভিত্তিক ব্রাউজার মাধ্যমে উল্লিখিত সাইট ব্রাউজ করতে পারবেন না। গ্রাহকরা শুধুমাত্র ডিফল্ট ওয়েব ব্রাউজার এবং এপ্লিকেশনগুলির সাহায্যে ব্যবহার করতে পারেন ।

জিপি ভিডিও প্যাক

  • এই প্যাক এর সাহায্যে কাস্টমার শুধুমাত্র (http://m.youtube.com/ ; http://m.bongobd.com/ ; http://www.popcornlive.tv/) এই নির্ধারিত সাইট গুলো ব্যবহার করতে পারবে।
  • যদি মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কাস্টমারের ভিডিও ইন্টারনেট প্যাকের ভলিউম শেষ হয়ে যায় এবং কাস্টমারের অন্য কোনো রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ ভলিউম না থাকে, তাহলে কাস্টমার এর ইন্টারনেট ব্যবহারে টাকা ১.১৬৫/MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।  ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • ভিডিও প্যাক চালু থাকা অবস্থায় কাস্টমার এর যদি অন্য রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ ভলিউম না থাকে এবং কাস্টমার উল্লেখিত সাইট (http://m.youtube.com/ ; http://m.bongobd.com/ ; http://www.popcornlive.tv/) ছাড়া অন্য যেকোনো ইন্টারনেট সাইট ব্যবহার করলে ইন্টারনেট ব্যবহারে কাস্টমারের টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • গ্রাহক প্রক্সি ভিত্তিক ব্রাউজার মাধ্যমে উল্লিখিত ভিডিও সাইট ব্রাউজ করতে পারবেন না। গ্রাহকরা শুধুমাত্র ডিফল্ট ওয়েব ব্রাউজার এবং এপ্লিকেশনগুলির সাহায্যে ব্যবহার করতে পারেন ।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

জিপি মেসেজিং প্যাক

  • যদি মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কাস্টমারের মেসেজিং ইন্টারনেট প্যাকের ভলিউম শেষ হয়ে যায় এবং কাস্টমারের অন্য কোনো রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ ভলিউম না থাকে, তাহলে কাস্টমার এর ইন্টারনেট ব্যবহারে টাকা টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা (VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • মেসেজিং প্যাক চালু থাকা অবস্থায় কাস্টমার এর যদি অন্য রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ ভলিউম না থাকে এবং কাস্টমার Viber অথবা Whatsapp ছাড়া অন্য যেকোনো ইন্টারনেট সাইট ব্যবহার করলে ইন্টারনেট ব্যবহারে কাস্টমারের টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা (VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • Viber অথবা Whatsapp থেকে ভয়েস এবং ভিডিও কল এই প্যাক এর অংশ নয়। (Viber or Whatsapp) থেকে ভয়েস এবং ভিডিও কল করলে ঐসময় কাস্টমার এর অন্য রেগুলার ইন্টারনেট একাউন্ট এ কোনো ইন্টারনেট ভলিউম না থাকলে কাস্টমারের টাকা ১.১৬৫ /MB (SD+VAT+SC সহ) চার্জ প্রযোজ্য হবে সর্বোচ্চ সর্বোচ্চ ৫.৮২৫ টাকা(VAT,SD,SC অন্তর্ভুক্ত) পর্যন্ত।ইন্টারনেট প্যাক কিনতে ডায়াল করুন *121*3#
  • গ্রাহক প্রক্সি ভিত্তিক ব্রাউজার মাধ্যমে উল্লিখিত ভিডিও সাইট ব্রাউজ করতে পারবেন না। গ্রাহকরা শুধুমাত্র ডিফল্ট ওয়েব ব্রাউজার এবং এপ্লিকেশনগুলির সাহায্যে ব্যবহার করতে পারেন ।

জিপি স্টার প্যাক

  • স্টার ইন্টারনেট প্যাক কিনে গ্রাহক ৩ মাসের জন্য স্টার স্ট্যাটাস উপভোগ করতে পারবেন
  • প্যাক কেনার পরবর্তী ১১ তারিখে স্টার স্ট্যাটাস দেয়া হবে। অর্থাৎ যদি গ্রাহক ২৫ অক্টোবর বা ৪ নভেম্বর স্টার ইন্টারনেট প্যাক কিনে থাকেন, তাহলে তিনি ১১ নভেম্বর  থেকে একজন জিপি স্টার হিসেবে বিবেচিত হবেন।
  • গ্রাহক যদি স্টার স্ট্যাটাসের উপরের ধাপে থাকেন এবং নিচের ধাপের স্টার স্ট্যাটাস সম্বলিত ডাটা প্যাক কিনেন, গ্রাহকের উপরের ধাপের স্টার স্ট্যাটাস বহাল থাকবে।
  • জিপিপিপি, বিপিও, ইআরএস ও স্কিটো গ্রাহকদের জন্য এই সুযোগ প্রযোজ্য নয়।

উইন্ডোস কম্পিউটারের ১০ টি সেরা টিপস এন্ড ট্রিকস

Top 10 best windows PC tips in Bangla

যদি আপনি উইন্ডোস ৭ বা উইন্ডোস ১০ ব্যবহার করছেন, তাহলে অবশই নিচের টিপস গুলি আপনার জন্য অনেক কাজের প্রমাণিত হবে।

১. কম্পিউটার হ্যাং (Computer hang) হলে কি করবেন

এরকম আমাদের সাথে অনেক সময় হয়েছে এবং হয়। আমরা, নিজের উইন্ডোস কম্পিউটারে কোনো ফাইল বা app বা সফটওয়্যার ওপেন (open) করার পর সেই ফাইল বা সফটওয়্যারটি হ্যাং (hang) হয়ে যায় এবং তার পর আমরা কম্পিউটারে কিছুই করতে পারিনা।

হ্যাং হয়ে হাওয়া ফাইল close করাও সম্ভব হয়ে দাড়ায়না। তাই তো…?

কোনো ফাইলসফটওয়্যার বা প্রোগ্রাম (program) ব্যবহার করার সময় যদি সেই প্রোগ্রাম হ্যাং হয়ে যায়, তাহলে আমরা টাস্ক ম্যানেজার (task manager) ব্যবহার করে সেই program অনেক সহজে close করে কম্পিউটারের হ্যাং হওয়া ঠিক করে দিতে পারি।

এর জন্য, সবচে আগেই, কম্পিউটারের keyboard এ “Alt + Ctrl + Delete” একসাথে দাবিয়ে (press) নিতে হবে।

এতে, আপনি কিছু অপসন দেখতে পাবেন যাদের মধ্যে শেষে “Task manager” এর অপসন আপনারা দেখবেন।

Select hanged program

এখন, ওপরে ছবিতে দেখা মতে আপনারা task ম্যানেজারে সেই সব program বা software গুলি “process tab” এ দেখতে পাবেন, যেগুলি আপনার কম্পিউটার সিস্টেমে এখন চলছে।

দেরি না করেই, আপনার কম্পিউটারে যেই ফাইল বা প্রোগ্রাম হ্যাং হয়ে রয়েছে, টাস্ক ম্যানেজার থেকে সেই প্রোগ্রামে রাইট ক্লিক (right click) করুন।

এখন, প্রোগ্রামে রাইট ক্লিক করার পর আপনি কিছু অপশনস (options) দেখবেন যাদের মধ্যে “End task” অপশনে ক্লিক করতে হবে।

কম্পিউটারের হ্যাং হওয়া দূর করুন

End task অপশনে ক্লিক করার সাথে সাথেই আপনার হ্যাং হয়ে থাকা প্রোগ্রামটি close হয়ে যাবে এবং তার সাথে সাথে আপনার কম্পিউটার হ্যাং হওয়া দূর হয়ে যাবে।

কম্পিউটার হ্যাং হলে টাস্ক ম্যানেজার ব্যবহার কোরে অনেক সহজে আপনারা যেকোনো হ্যাং হয়ে যাওয়া প্রোগ্রামকে close কোরে কম্পিউটারকে হ্যাং মুক্ত করতে পারবেন।

২. Zoom out এবং zoom in এর ব্যবহার

অনেক সময়, যখন আমরা কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করি বা এক্সেল এবং ওয়ার্ড ফাইলে (word file) কিছু টাইপ করি বা রিড (Read) করি তখন আমাদের মনে হয়, “যদি স্ক্রিন এবং লেখাগুলি অল্প বরো করা যেত“. তাইতো…….?

তাহলে জেনে রাখুন, আপনার উইন্ডোস কম্পিউটারে আপনি যেকোনো স্ক্রিন (screen) বা desktop icon অনেক সহজে বরো এবং ছোট করতে পারবেন।

তার জন্য, আপনার কেবল keyboard এ “Ctrl” প্রেস করে মাউসের (mouse) মধ্যেখানে থাকা mouse wheel টি ওপরে এবং নিচে স্ক্রল (scroll) কোরে zoom out এবং zoom in করতে হবে।

এতে আপনার কম্পিউটারের যেকোনো স্ক্রিন যেমন, কোনো টেক্সট এডিটর (text editor)ডেস্কটপ আইকন বা ব্রাউসার ট্যাব (browser tab) ছোট এবং অনেক বড়ো করা যেতে পারে।

৩. একটি ফ্রি হলেও এন্টিভাইরাস ব্যবহার করুন

একটি কম্পিউটারে ফ্রি হলেও এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার (antivirus software) ব্যবহার করাটা অনেক জরুরি। এইটা, আমার থেকে আপনাদের জন্য অনেক প্রয়োজনীয় একটি পরামর্শ।

কারণ, আমরা আমাদের কম্পিউটারে ইন্টারনেট অবশই ব্যবহার করি। আর তাই, কম্পিউটারে বিভিন্য রকমের ক্ষতিকারক ভাইরাস ঢুকার সম্ভাবনা অনেক বেশি বেড়েযায়।

জেনেনিন – কম্পিউটার ভাইরাস কি ?

এই ক্ষেত্রে, একটি ফ্রি হলেও, ভালো এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার আপনার কম্পিউটারে ব্যবহার করাটা অনেক জরুরি।

এতে, আপনার কম্পিউটারে, ইন্টারনেট এবং বিভিন্য আলাদা আলাদা জায়গার থেকে ভাইরাস ঢুকতে পারবেনা এবং কম্পিউটার ভাইরাস মুক্ত থাকবে।

আমি নিজেই আভাস্ট (avast) ফ্রি এন্টিভাইরাস আমার কম্পিউটারে ব্যবহার করছি।

৪. মোবাইলের ইন্টারনেট কম্পিউটারে ব্যবহার করুন

আপনাদের মধ্যে হয়তো অনেকেই জানেন, আমরা আমাদের মোবাইলের থেকে ইন্টারনেট কম্পিউটারে ব্যবহার করতে পারি।

মোবাইল থেকে কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য আপনার হাথে দুটো অপসন থাকছে।

  • ডাটা কেবল (data cable) দ্বারা
  • Wifi hotspot দ্বারা

ডাটা ক্যাবল দ্বারা ইন্টারনেট 

আপনি যদি, data cable ব্যবহার করে মোবাইলের ইন্টারনেট কম্পিউটারে ব্যবহার করতে চান, তাহলে, প্রথমেই data cable টি মোবাইলের এবং CPU (computer) এর USB port এ লাগিয়ে নিন।

এখন, মোবাইল এবং কম্পিউটারে ডাটা ক্যাবল কানেক্ট (connect) করার পর, মোবাইলের settings অপশনে গিয়ে “USB tethering” বা “share network using USB” অপশটি enable করে দিন।

এখন, আপনি আপনার মোবাইলের ইন্টারনেট ব্যবহার কমে কম্পিউটারে ইন্টারনেট কানেক্ট (connect) করতে পারবেন।

Wifi hotspot দ্বারা ইন্টারনেট

মোবাইলের wifi হটস্পট দ্বারা কম্পিউটারে ইন্টারনেট কানেক্ট করার জন্য, সবচে আগেই আপনার মোবাইলের “settings> portable hotspot> Portable wifi hotspot” অপশনটি enable করতে হবে।

মোবাইলে hotspot enable করার পর মোবাইলের ইন্টারনেট এখন যেকোনো অন্য কম্পিউটার বা মোবাইল দ্বারা connect করার জন্য তৈরি।

এখন আপনি আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে, desktop এর নিচে থাকা wifi icon এ ক্লিক করুন এবং নিজের মোবাইলের wifi network টি বেঁচে “connect” অপশনে ক্লিক করুন।

Wifi হটস্পট দিয়ে কম্পিউটারে ইন্টারনেট

যদি, আপনার মোবাইলের wifi hotspot setting এ কোনো password set করা আছে, তাহলে সেই পাসওয়ার্ড আপনার কম্পিউটারেও wifi network টি কানেক্ট করার সময় দিতে হবে।

সঠিক পাসওয়ার্ড দেয়ার পর, আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে wifi hotspot দ্বারা মোবাইলের ইন্টারনেট কানেক্ট হয়ে যাবে।

এখন আপনি আপনার মোবাইলের ইন্টারনেট দ্বারা কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

Note: আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে যদি wifi নেই, তাহলে কেবল Rs.২০০ টাকার মধ্যেই একটি wifi device কিনে নিতে পারবেন। এতে, আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপেও wifi network ব্যবহার করতে পারবেন।

৫. কম্পিউটারের পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করুন পুরোনো পাসওয়ার্ড ছাড়াই

অনেক সময় হয়তো আপনি আপনার কম্পিউটারের পুরোনো পাসওয়ার্ড ভুলে যান আর তাই কম্পিউটারে নতুন পাসওয়ার্ড সেট করাটা সম্ভব হয়না।

কিন্তু, নিচে, আমি এমন একটি ট্রিক (trick) বলবো যেটা ব্যবহার করে আপনারা, পুরোনো উইন্ডোস পাসওয়ার্ড ছাড়াই কম্পিউটারে একটি নতুন পাসওয়ার্ড সেট করতে পারবেন।

Trick –

সবচে আগেই, আপনার কম্পিউটারে Command prompt অপশনে যেতে হবে।

আপনি যদি উইন্ডোস ৭ বা উইন্ডোস ১০ ব্যবহার করছেন, তাহলে নিচে task bar এ command prompt লিখে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন।

চেঞ্জ উইন্ডোস পাসওয়ার্ড

এখন, command prompt পেয়েগেলে তাতে right click করুন এবং Run as administrator অপশনে ক্লিক করুন।

Run as administrator অপশনে ক্লিক করার পর আপনার কম্পিউটারে command prompt ওপেন হয়ে যাবে।

এখন, আপনারা নিচে ছবিতে যা দেখছেন, command prompt বক্সে আপনাদের কিছু কোড (code) টাইপ করতে হবে।

open command prompt

Type codes in command prompt –

সবচে আগেই লিখুন – “net user” এবং লিখেই “keyboard এ enter button” টিপুন। (ওপরে ছবিতে দেখুন আমি কিভাবে লিখেছি).

এখন, নিচে আপনারা আপনার কম্পিউটারের user name বা user accounts দেখতে পাবেন।

আপনি যেই user name বা user account এর password change করতে চান, সেটার পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করার জন্য নিচের কোডটি টাইপ করুন।

“net user” “user/account name” “new password”

প্রথমেই, net user লিখুন, তারপর স্পেস দিয়ে user name লিখুন, তারপর স্পেস দিয়ে নতুন পাসওয়ার্ড লিখুন।

এখন সোজা, enter প্রেস করুন।

Congratulations, এখন আপনার উইন্ডোস কম্পিউটারের পাসওয়ার্ড চেঞ্জ (change) হয়ে গেছে পুরোনো পাসওয়ার্ড ছাড়াই।

পুরোনো পাসওয়ার্ড ছাড়া কম্পিউটারে নতুন পাসওয়ার্ড সেট করার এইটা অনেক সোজা এবং কাজের নিয়ম।

৬. কম্পিউটারের কিছু প্রয়োজনীয় শর্টকাট (shortcut) key

আমার কম্পিউটারে কাজ করার সময় কিছু শর্টকাট (shortcut key) ব্যবহার কোরে আমাদের কাজগুলি অনেক সহজে কোরে নিজে পারি।

নিচে দেয়া কম্পিউটারের shortcut key গুলি জানা থাকলে, আপনি অফিসে কাজের সময় ব্যবহার করতে পারবেন, বা কম্পিউটার রিলেটেড চাকরির ইন্টারভিউ দেয়ার সময় দেখিয়ে নিজের অভিজ্ঞতা জানিয়ে দিতে পারবেন।

Important computer shortcut keys in bangla 

  1. Alt+F ব্যবহার করে, যেই প্রোগ্রাম ব্যবহার করছেন, তার file menu option পেয়ে যাবেন।
  2. ALT+E  দ্বারা যেই প্রোগ্রাম ব্যবহার করছেন তার edit option পেয়েযাবেন।
  3. F5 কিবোর্ডে প্রেস কোরে কম্পিউটার রিফ্রেশ (refresh) করতে পারবেন।
  4. যেকনো ফাইল বা ফোল্ডার সিলেক্ট কোরে F2 press করলে, ডাইরেক্ট ফাইল রিনেম (file rename) অপসন এসেযাবে।
  5. Alt+Tab প্রেস কোরে খোলা (open) প্রোগ্রাম গুলির মধ্যে একটা বেচেনিয়ার অপসন পাবেন।
  6. Ctrl+A প্রেস কোরে যেকোনো ফাইলের সব টেক্সট (text) একেবারেই পুরোটা একসাথে সিলেক্ট করতে পারবেন।
  7. CTRL+S প্রেস কোরে যেকোনো ফাইল বা document শর্টকাটে সেভ (save) করতে পারবেন।
  8. Ctrl+C প্রেস কোরে যেকোনো সিলেক্ট করা অংশ কপি (copy) করতে পারবেন।
  9. Ctrl+V যেকোনো কপি করা অংশ সহজে পেস্ট করার জন্য।
  10. Ctrl+P যেকোনো document বা file প্রিন্ট করার শর্টকাট।
  11. Alt+F প্রেস কোরে যেকোনো ওপেন থাকা প্রোগ্রাম সহজে close করুন।
  12. Ctrl+Z ব্যবহার কোরে যেকোনো স্টেপ বা ভুল step আবার ভুল করার আগের অবস্থায় নিয়ে যেতে পারবেন।

তাহলে, আশা করি বন্ধুরা, উইন্ডোস কম্পিউটারের এই প্রয়োজনীয় শর্টকাট কি  গুলি আপনাদের অনেক কাজে আসবে।

৭. কম্পিউটারে যেকোনো ওয়েবসাইট ব্লক করুন (block website)

আপনি যদি, নিজের কম্পিউটার থেকে যেকোনো ওয়েবসাইট ব্লক করে রাখতে চান, তাহলে সেটা অবশই সম্ভব।

সবচে আগেই, আপনার “Win + R” বাটন প্রেস করতে হবে।

এরপর আপনারা RUN dialog box কম্পিউটার স্ক্রিনে দেখতে পাবেন।

কম্পিউটারে ওয়েবসাইট ব্লক

এখন, Run বক্সে কীবোর্ড (keyboard) ব্যবহার কোরে এই শব্দগুলি লিখুন –  %windir%\system32\drivers\etc  (ওপরে ছবিতে দেখুন).

লিখা হয়ে গেলে শেষে “Ok” button এ ক্লিক করুন।

এখন আপনার সামনে, কিছু ফাইল দেখা দিবে।

edit host file in run

যা আপনারা ওপরে দেখছেন, আপনাদের প্রথমে থাকা “Hosts” ফাইলটি কপি করে desktop বা অন্য ফোল্ডারে পেস্ট (past) করতে হবে।

এখন, পেস্ট করা hosts file এ right click করুন এবং Open with অপশনে ক্লিক করুন।

Open with এ ক্লিক করার পর আপনারা notepad অপসন দেখবেন যেখানে আপনাদের ক্লিক করতে হবে।

Hosts ফাইলটি নোটপ্যাড এ ওপেন করার পর আপনারা কিছু লেখা তাতে দেখবেন।

ফাইলটির নিচে, “Localhost name resolution” লেখার নিচের দিকে আপনারা কিছু আইপি (IP) address দেখবেন। যেমন আমার ছবিতে আইপি এড্রেস দেখাচ্ছে “134.0.0.1“.

এখন, আপনাদের এই আইপি (IP) address কপি করে নিয়ে একেবারে শেষে পেস্ট (paste) করতে হবে।

Block website in computer

কপি করা আইপি এড্রেস ফাইলের একদম শেষে পেস্ট কোরে তার পাশে, যেই ওয়েবসাইট ব্লক করতে চান, তার URL address লিখে দিতে হবে।

Block করা ওয়েবসাইটের www. এবং www ছাড়া দুটোই version আপনাদের লিখতে হবে। তাছাড়া, আলাদা আলাদা ওয়েবসাইটের জন্য আপনার আইপি এড্ড্রেসের শেষে ১, ২,৩,৪ এভাবে মিলিয়ে লিখতে হবে।

ভালো করে বুঝার জন্য ওপরের ছবিটি দেখুন।

এখন, hosts file টি save করুন এবং যেখান থেকে কপি করেছিলেন, সেখানেই আবার পেস্ট করুন।

Block করা ওয়েবসাইট যখন আপনি আপনার কম্পিউটারের ব্রাউজারে খোলার চেষ্টা করবেন, তখন সেই ওয়েবসাইট আর আপনার কম্পিউটারে ওপেন হবেনা।

এভাবেই, আপনি নিজের কম্পিউটারে যেকোনো ওয়েবসাইট ব্লক করেদিতে পারবেন।

৮. Personal file এবং folder সুরক্ষিত রাখুন

আপনারা কি জানেন, আপনার কম্পিউটার থেকে যেকোনো জরুরি ফাইল বা ফোল্ডার জেকেও পেনড্রাইভে (pendrive) বা অন্য external storage device ব্যবহার কোরে নিয়ে সেগুলির অপব্যবহার (misuse) করতে পারে ?

তাহোলে, আপনার কম্পিউটার থেকে যাতে কেও কোনো file বা folder নিয়ে সেগুলি দেখতে বা ওপেন (open) করতে বা খুলতে না পারে, তার জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন “encrypt content function” এর।

যখন, আপনি এই encrypt contents অপশনের ব্যবহার করে যেকোনো file বা folder, encrypt করবেন, তখন সেই encrypt করা file বা folder কেবল আপনার কম্পিউটারেই ওপেন (open) হবে বা খুলবে।

আপনার কম্পিউটার ছাড়া সেই ফাইল বা ফোল্ডার অন্য কোনো কম্পিউটারে বা ল্যাপটপে চলবেনা।

কারণ, এক ধরণের security সেই file বা ফোল্ডারে encrypt content অপশনের দ্বারা এপলাই (apply) কোরে দেয়া হয়।

কিভাবে করবেন encrypt content অপশনের ব্যবহার ?

সবচে আগে, আপনি যেই file বা folder এ encrypt content অপসন enable করতে চান, সেই ফাইল বা ফোল্ডারে right click করুন এবং তারপর নিচে “properties” অপশনে ক্লিক করুন।

Go to folder properties

এখন properties এ ক্লিক করার পর আপনারা “advanced” বলে একটি অপসন দেখবেন।

সোজা, advanced অপশনে ক্লিক করুন

Advanced এ ক্লিক করার পর আপনারা কিছু অপশনস দেখবেন।

enable encryption in folder

দেখা option গুলির মধ্যে, সবচে শেষে নিচের দিকে – “Encrypt contents to secure data” বলে একটি অপসন দেখবেন, যেটাতে select করে বা click করে নিচে “OK” এবং তারপর “Apply” button এ ক্লিক করতে হবে।

settings apply করুন

এই স্টেপ গুলি ভালো ভাবে করলেই, আপনার বেঁচে নেয়া জরুরি ফাইল বা ফোল্ডার secure হয়ে যাবে এবং কেও সেগুলি কপি করে নিলেও, তাদের কম্পিউটারে ওপেন করতে পারবেনা।

৯. কম্পিউটারে যেকোনো ফোল্ডার হাইড (folder hide) করুন

এখন, অনেক সময় আপনার কম্পিউটারে এমন কোনো ফাইল বা ফোল্ডার থাকতেই পারে, যেগুলি আপনারা লুকিয়ে রাখতে চান

বা, সেই file বা folder গুলি আপনারা অন্য কাওকে দেখাতে চাননা।

এই ক্ষেত্রে, আপনারা উইন্ডোস এর একটি বিশেষ ফাঙ্কশন (function) “Hide folder” অপশনের ব্যবহার করতে পারবেন।

উইন্ডোস কম্পিউটারে যেকোনো ফোল্ডার হাইড করার জন্য বা লুকিয়ে রাখার জন্য, আপনার সেই ফোল্ডারে right click কোরে তারপর properties অপশনে ক্লিক করতে হবে।

Hide a folder in computer

এখন, Properties অপশনে ক্লিক করার পর আপনারা “General” ট্যাবে “Hidden” বলে একটি অপসন দেখবেন, যেটাতে ক্লিক কোরে সিলেক্ট করে নিতে হবে।

Click on hidden option

ভালো ভাবে জেনেনেয়ার জন্য ওপরে ছবিতে দেখুন।

শেষে, “Apply” button এ ক্লিক করুন।

এখন আপনার বেঁচে নেয়া folder hide হয়ে যাবে।

১০. কম্পিউটারের হিডেন ফোল্ডার কিভাবে দেখবেন (show hidden folder)

এখন আপনার কম্পিউটারে যদি কোনো ফাইল বা ফোল্ডার হাইড হয়ে থাকে, তাহলে সেটাকে আবার show করার জন্য আপনার কিছু steps follow করতে হবে।

হিডেন ফোল্ডার (hidden folder) show করার জন্য আপনার প্রথমেই সেই drive open করতে হবে যেই ড্রাইভে ফাইল বা ফোল্ডার শো করতে চান।

Click on view option

এখন, যেভাবে আপনি ওপরের ছবিতে দেখছেন আপনি “View” অপসন একটি ওপরের বামদিকে দেখতে পাবেন। সোজা, সেই view অপশনে ক্লিক করুন।

এখন, View অপশনে ক্লিক করার পর, আপনারা ডানদিকে আরো কিছু options দেখবেন দেগুলির মধ্যে “Options” এবং তারপর “change folder and file option” এ ক্লিক করুন।

Go to folder options

ভালো ভাবে জানার জন্য ওপরের ছবি দেখুন।

এখন, আপনারা একটি dialog box দেখবেন, যেখানে file এবং folder এর সাথে জড়িত অনেক options আপনারা দেখবেন।

সোজা, বক্সের ওপরে “view” ট্যাবে ক্লিক করুন এবং নিচে থাকা “show hidden files,folders and drives” অপশনে ক্লিক করুন এবং নিচে “Apply” তে ক্লিক করুন।

show hidden files in computer

এখন, অনেক সহজে আপনার কম্পিউটারের বেচেনিয়া ড্রাইভে থাকা সব hidden files এবং folder show হয়ে যাবে।

ফেসবুক থেকে ফটো ও ভিডিও ব্যাকআপ নেয়ার উপায়

ফেসবুকে আমরা অনেক সময় অনেক ছবি এবং ভিডিও আপলোড করি, যেগুলো আলাদা ভাবে অনলাইনে সংরক্ষণ করা হয়ে ওঠে না। তাই এগুলার কোনো ব্যাকআপ থাকে না। হঠাৎ করে ফেসবুকের সার্ভার ডাউন হয়ে গেলে কিংবা ফেসবুক একাউন্টে কোন সমস্যা হলে ঐ ছবি এবং ভিডিও হারিয়ে যেতে পারে। এছাড়া আপনি চাইতেই পারেন যে ফেসবুকে আপনার আপলোড করা সব ছবি এবং ভিডিওর একটা ব্যাকআপ আপনার নিজের কাছে রেখে দিতে। এতদিন এটা সহজে সম্ভব ছিলনা। এখন থেকে আপনি কয়েক ক্লিকেই এই ব্যাকআপ পেতে পারেন।

ব্যবহারকারীদের আপলোডকৃত ছবি ও ভিডিও গুগল ফটোস এ ট্রান্সফার করার টুল ফেসবুকে গত বছর পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়। এই বছরের শুরুতেই যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, আফ্রিকাসহ কিছু দেশে ফিচারটি চালু করা হয়।

এখন বিশ্বের সকল ফেসবুক ব্যবহারকারীর জন্য ফিচারটি উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। ফেসবুকের ডেস্কটপ ভার্সন কিংবা মোবাইল অ্যাপ, উভয় প্ল্যাটফর্মেই ব্যবহার করা যাবে গুগল ফটোস এ ছবি ট্রান্সফার করার ফিচারটি।

ফেসবুক থেকে গুগল ফটোস এ ছবি কপি করার করার নিয়ম

কম্পিউার বা ওয়েব ভার্সন

আপনার কম্পিউটারে ফেসবুক থেকে গুগল ফটোসে ছবি ট্রান্সফার করতে নিচের নিয়ম অনুসরণ করুন।

  • ফেসবুক একাউন্টে লগইন করুন
  • ডান দিকের কর্নার হতে তীর চিহ্নে ক্লিক করে Settings এ প্রবেশ করুন
  • বামদিকে থাকা Your Facebook Information এ প্রবেশ করুন
  • Transfer a Copy of Your Photos or Videos অপশনটি নির্বাচন করুন
  • Destination হিসেবে Google Photos নির্বাচন করুন
  • এরপর আপনার গুগল একাউন্ট এ লগইন করে বাকি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করুন।

মোবাইল অ্যাপে যেভাবে করবেন

মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে ফেসবুক থেকে গুগল ফটোস এ ছবি ট্রান্সফার করার নিয়ম অনেকটা ডেস্কটপ এর মতই। মোবাইল অ্যাপ দ্বারা ফেসবুক থেকে গুগল ফটোস এ ছবি ট্রান্সফার করতে নিচের নিয়ম অনুসরণ করুন।

  • ফেসবুক অ্যাপ এ লগ ইন করুন
  • হ্যামবার্গার মেন্যু (তিনটি সমান্তরাল দাগ) থেকে Settings এ প্রবেশ করুন
  • নিচের দিকে স্ক্রল করে Your Facebook Information এ প্রবেশ করুন
  • Transfer a Copy of Your Photos or Videos অপশনটি নির্বাচন করুন
  • Destination হিসেবে Google Photos নির্বাচন করুন
  • এরপর আপনার গুগল একাউন্ট এ লগইন করে বাকি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করুন।

উল্লেখ্য যে, টুলটি ব্যবহার করে ছবি ট্রান্সফার করলে আপনার ফেসবুক একাউন্ট এ থাকা সকল ছবি এবং ভিডিওই গুগল ফটোস এ ইমপোর্ট হয়ে যাবে। অর্থাৎ, এখানে আলাদাভাবে ছবি নির্বাচন করা সম্ভব নয়। গুগল ফটোস থেকে কোনো ছবি ডিলিট করলে তা ফেসবুক থেকে ডিলিট হবেনা। ফেসবুকে থাকা ছবি আলাদাভাবে ডিলিট করতে হবে (যদি চান)।

২০১৮ সাল থেকে ফেসবুক, মাইক্রোসফট, গুগল এবং টুইটার, তাদের প্ল্যাটফর্মগুলোকে আরো সহজ আর ইউজার ফ্রেন্ডলি করার লক্ষ্যে একজোট হয়ে কাজ করে আসছে। এরই অংশ হিসেবে ফেসবুক থেকে গুগল ফটোস এ ছবি ট্রান্সফার করার টুলটি জন্ম নিয়েছে।

করোনাভাইরাস ঝুঁকি কমাতে আপনার মোবাইল ফোনটিও পরিষ্কার রাখুন

বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাস এখন এক বিশাল আতঙ্কের নাম। ইতোমধ্যে বিশ্বের ১৪১টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে নতুন এই করোনাভাইরাস। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এর তথ্যানুযায়ী দেড় লাখের বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১৫ই মার্চ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৫৭০০ এর বেশি।

আশা করি আপনি করোনাভাইরাসের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করছেন। বার বার হাত ধোয়া এদের মধ্যে অন্যতম। কিন্তু একটা ব্যাপার কি লক্ষ্য করেছেন, যে আপনি আপনার মোবাইল ফোনটি দিনে কতবার হাতে নেন? কথা বলার সময় ফোনটি মুখের কাছেও নিতে হয়। এছাড়া ফোন ব্যবহার করে সেই হাত দিয়েই আমরা অন্য কাজ করি, এমনকি খাবার খাই, চোখ-কান স্পর্শ করি।

সমস্যাটা এখানেই। পরিবেশ থেকে আপনার হাতে বিভিন্ন রকম জীবাণু লাগতে পারে। সেই হাত দিয়ে যখন মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন তখন সেই জীবাণু মোবাইল ফোনেও লাগে। এরপর ভাইরাস, ব্যাক্টেরিয়া এসবে ব্যবহারকারীর সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এজন্য আপনার মোবাইল ফোনটিও যথাযথভাবে পরিষ্কার করা দরকার।

মোবাইল ফোন পরিষ্কার রাখার উপায়

মোবাইল ফোন পরিষ্কার করার আগে শুরুতেই সেটটি বন্ধ করে নিন। এটি থেকে বাহ্যিক সরঞ্জাম যেমন হেডফোন, চার্জার প্রভৃতি খুলে নিন। আপনার ফোনটি পানিরোধী হোক বা না হোক, এটি পরিষ্কার করার জন্য আপনাকে ডিভাইসটি ধুতে হবেনা। বরং ৭০% আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল জাতীয় পরিষ্কারক কিংবা হ্যান্ড স্যানিটাইজার একটা কাপড়ে লাগিয়ে সেই কাপড়টি দিতে ধীরে ধীরে আপনার ফোনটি পরিষ্কার করে নিন।

মোবাইল ফোন পরিষ্কার করার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে এর পোর্টগুলোরে তরল না জমে যায়। তাহলে ডিভাইসটি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

বাজারে এখন অনেক প্রকার স্যানিটাইজার পাওয়া যায় যেগুলো দিয়ে আপনার হাতের পাশাপাশি মোবাইল ফোনের মত ব্যবহার্য জিনিসপত্রও এভাবে পরিচ্ছন্ন রাখতে পারেন।

মনে রাখবেন, আপনি যদি ফোনে কভার ব্যবহার করেন, তাহলে কভার এবং ফোন আলাদাভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে। স্ক্রিন প্রটেক্টর ব্যবহার করলে প্রটেক্টরের চারদিকে ভালভাবে কাপড় ও স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। কেউ কেউ বাথরুমে মোবাইল নিয়ে যায়, যেটা খুবই অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস, এটা ত্যাগ করা জরুরী।

জিমেইল অফলাইন – ইন্টারনেট ছাড়াই ব্যবহার করুন জিমেইলের বিভিন্ন সুবিধা!

গত বছর গুগল তাদের জিমেইলের ওয়েব ভার্সনে নতুন ফিচার আপডেট ও টুইকস এর পাশাপাশি এতে ব্র্যান্ড নিউ অফলাইন মোড ফিচার চালু করেছে। এই জিমেইল অফলাইন ফিচার ব্যবহার করে আপনি চাইলে ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়াই আপনার পিসি ব্রাউজারে জিমেইলের বিভিন্ন সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।

জিমেইলের এই অফলাইন মোড শুধুমাত্র কম্পিউটারে গুগল ক্রোম ব্রাউজারেই কাজ করবে। তাই অন্য কোনো ব্রাউজার ব্যবহারকারী হলে এই অফলাইন ফিচার ব্যবহার করার জন্য আপনাকে প্রথমেই গুগল ক্রোম ইন্সটল করে নিতে হবে।

তো, জিমেইলে লগইন করে উপরের দিকে ডানপাশে গিয়ার আইকনটিতে ক্লিক করুন। মেন্যু থেকে সেটিংস পেইজে প্রবেশ করুন। এখন সেটিংস পেইজটির হেডার অংশের একদম ডানদিকে থাকা অফলাইন ট্যাবে যান। অথবা পিসিতে (ক্রোমে) জিমেইলে লগইন করে সরাসরি এই লিংক ভিজিট করুনঃ https://mail.google.com/mail/u/0/#settings/offline

সেখান থেকে আপনি অফলাইন মোডকে কাস্টমাইজ করে নিচে সেইভ চেঞ্জেস বাটন চাপলেই অফলাইন মোড অন হয়ে যাবে।

অফলাইন মোড কাস্টমাইজেশনের ক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন আপশন পাবেন। যেমনঃ সর্বশেষ কতদিন পর্যন্ত আপনার ইনবক্স সিঙ্ক করা হবে তা নির্ধারন করে দিতে পারবেন। পাশাপাশি মেসেজগুলো কি এটাচমেন্ট সহ নাকি এটাচমেন্ট ছাড়া ডাউনলোড হবে সেটাও আপনি বাছাই করে দিতে পারেন।

জিমেইল অফলাইন

যেহেতু এক্ষেত্রে আপনার পিসির হার্ড্ড্রাইভে মেসেজ ও এটাচমেন্টগুলো ডাউনলোড হবে তাই আপনি স্টোরেজ বাঁচাতে চাইলে সর্বোচ্চ এক সপ্তাহের ইমেইল স্টোর করাই যুক্তিযুক্ত হবে।

এখানে আপনি সিকিউরিটি রিলেটেড একটা অপশনও পাবেন। আপনি যদি আপনার একাউন্ট থেকে লগআউট করেন তাহলে এটি কি আপনার পিসিতে ডাউনলোড করা ডেটা মুছে ফেলবে নাকি রেখে দিবে সেটা নির্ধারন করার ক্ষমতাও আপনার হাতেই থাকছে।

অফলাইন সেটআপ হয়ে গেলে ইন্টারনেট ছাড়া জিমেইল ব্যবহার করার জন্য কম্পিউটারের গুগল ক্রোম ব্রাউজারে mail.google.com লিংক ভিজিট করুন। এই লিংকটি বুকমার্ক করে রাখলে ভালো হয়।

অফলাইন অবস্থায় আপনি নতুন ইমেইল রিসিভ করতে পারবেন না। তবে সেন্ড করতে চাইলে ইমেইল লিখে সেন্ড অপশন বাছাই করলে সেটি আউটবক্সে জমা হবে, এবং নেট সংযোগ পেলে তখন মেইলটি ডেলিভারি হবে।

জিমেইল অফলাইন ফিচার বন্ধ করতে চাইলে প্রথমেই আপনি আপনার জিমেইল সেটিংস (https://mail.google.com/#settings/offline) থেকে এটি বন্ধ (আনচেক) করুন। এরপর ক্রোম ব্রাউজারের সেটিংস থেকে “অল কুকিজ অ্যান্ড সাইট ডেটা” রিমুভ করে দিন।

সব মিলিয়ে জিমেইলের এই অফলাইন ফিচার খুব কাজে দিবে আশা করা যাচ্ছে। বিশেষ করে যারা ব্যবসায়িক বা অফিশিয়াল কাজে লম্বা ভ্রমণ করেন তারা চাইলে চলতি পথে প্রয়োজনীয় ইমেইল লেখা ও ইনবক্স চেক করার বিষয়টা ইন্টারনেট ছাড়াই মিটিয়ে ফেলতে পারবেন।

আর হ্যাঁ, মোবাইলে জিমেইল অ্যাপে সেটিংস থেকে ইমেইল সিঙ্ক্রোনাইজ চালু করে রাখলে সেগুলোও ইন্টারনেট ছাড়া এক্সেস করতে পারবেন।

আপনি কি জিমেইল অফলাইন মোড ব্যবহার করেছেন?

বিভিন্ন মোবাইল অপারেটরে ইন্টারনেট ডাটা গিফট করার পদ্ধতি

একসময় মানুষ তার প্রিয়জন বা বন্ধুবান্ধবকে বই কিংবা অন্যান্য সামগ্রী উপহার হিসেবে দিতো। যুগটাই এখন ডিজিটাল। আর এ কারণেই উপহার দেয়ার ধরনও পাল্টেছে। ইদের সালামী কিংবা ছোটখাট উপহার হিসেবে কাউকে মোবাইল রিচার্জ করে দেয়া কিংবা মোবাইল ডেটা বা টকটাইম উপহার দেয়াটা এখন খুবই স্বাভাবিক বিষয়। এই আর্টিকেলে মূলত বিভিন্ন অপারেটরে কীভাবে আপনি অন্যকে মোবাইল ডেটা উপহার দিতে পারেন সেই পদ্ধতিগুলো জানানো হবে।

শুধু উপহারই নয় বরং বিভিন্ন কারণে অন্য কাউকে অনেকসময় মোবাইল ডেটা একটিভেট করে দেয়া লাগে। আপনার বয়স্ক কোন পরিবারের সদস্য হয়তো মোবাইলে নিয়মিত ভিডিও কলে আপনার সাথে কথা বলে কিন্তু তিনি মোবাইল ডেটা একটিভেট করতে পারেন না। সেক্ষেত্রে এ পদ্ধতিতে আপনি দূরে থেকেই তাকে মোবাইল ডেটা কিনে একটিভেট করে দিতে পারছেন।

গ্রামীণফোন ইন্টারনেট এমবি গিফট

গ্রামীণফোনে আপনি ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর মাধ্যমে কাউকে চাইলে মোবাইল ডেটা বা এমবি গিফট করতে পারবেন। মাইজিপি অ্যাপ, ফ্লেক্সিপ্ল্যান অ্যাপ কিংবা গ্রামীনফোনের ওয়েবসাইটে ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর ওয়েব অ্যাপ ব্যবহার করে এই সেবা নেয়ে যাবে।

এক্ষেত্রে আপনি অ্যাপ কিংবা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফ্লেক্সিপ্ল্যান এ প্রবেশ করে ডেটার পরিমাণ ও মেয়াদ সিলেক্ট করে গিফট করতে পারবেন। তবে আপাতত তাদের কিছু নির্ধারিত পরিমাণের মাঝেই আপনাকে বাছাই করতে হবে, নিজের ইচ্ছামত পরিমাণ বাছাই করতে পারবেন না। এরপর আপনার মোবাইল নম্বর দিলে সেখানে একটি ওটিপি আসবে যেটি পরবর্তী পেইজে বসিয়ে যাকে গিফট করতে চান তার নম্বর দিলেই হয়ে যাবে। যদি মাইজিপি অ্যাপ ব্যবহার করেন তাহলে ওটিপি দেয়ার কোন ঝামেলাও থাকছে না।

লিঙ্কসমূহঃ

রবি ইন্টারনেট এমবি গিফট

আপনি রবি ব্যবহারকারী হলে খুব সহজেই ইউএসএসডি ব্যবহার করে কাউকে মোবাইল ডেটা গিফট করতে পারবেন। এজন্য আপনাকে *১২১২# ডায়াল করে পর্যায়ক্রমে ইউএসএসডি মেন্যু থেকে “গিফটিং” এবং “মোবাইল ডেটা” অপশন সিলেক্ট করতে হবে। অতঃপর আপনি নির্দিষ্ট কিছু প্যাকেজ থেকে বাছাই করে কাউকে সেই ডেটা প্যাক গিফট করতে পারবেন।

এছাড়া রবি মাইপ্ল্যান অ্যাপ ব্যবহার করে গ্রামীনফোনের ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর মতোই মাই প্ল্যান থেকে ডেটা সিলেক্ট করে সেটি কাউকে গিফট করতে পারবেন। সেজন্য মাইপ্ল্যান থেকে ডেটা সিলেক্ট করার পর “গিফট” অপশনটিতে টিক চিহ্ন দিয়ে যাকে গিফট করতে চান তার নম্বরটি দিয়ে দিন।

লিঙ্কসমূহঃ

এয়ারটেল  ইন্টারনেট এমবি গিফট

বাংলাদেশে রবি এবং এয়ারটেল মূলত একই কোম্পানি হওয়াতে রবির ন্যায় এয়ারটেলেও একই পদ্ধতিতে মোবাইল ডেটা গিফট করতে পারবেন। এয়ারটেলে ইউএসএসডি ব্যবহার করে ডেটা গিফট করার জন্য আপনাকে *১২১২# ডায়াল করে পর্যায়ক্রমে ইউএসএসডি মেন্যু থেকে “মোবাইল ডেটা” অপশন সিলেক্ট করতে হবে। অতঃপর আপনি নির্দিষ্ট কিছু প্যাকেজ থেকে বাছাই করে কাউকে সেই ডেটা প্যাক গিফট করতে পারবেন।

এছাড়া রবির মত এয়ারটেল মাইপ্ল্যান অ্যাপ ব্যবহার করে মাই প্ল্যান থেকে ডেটা সিলেক্ট করে সেটি কাউকে গিফট করতে পারবেন। সেজন্য মাইপ্ল্যান থেকে ডেটা সিলেক্ট করার পর “গিফট” অপশনটিতে টিক চিহ্ন দিয়ে যাকে গিফট করতে চান তার নম্বরটি দিয়ে দিন।

লিঙ্কসমূহঃ

বাংলালিংক ইন্টারনেট এমবি গিফট

বাংলালিংকে আপনি ইউএসএসডি মেন্যু ব্যবহার করে কাউকে মোবাইল ডেটা গিফট করতে পারবেন। সেজন্য *৫০০০*৫৫# ডায়াল করে নির্দিষ্ট কিছু ইন্টারনেট প্যাক থেকে বাছাই করুন। এরপর যাকে পাঠাতে চান তার নম্বর দিলেই তার কাছে ইন্টারনেট চলে যাবে।

ইন্টারনেট এমবি গিফট – সকল অপারেটর

উপরের পদ্ধতিগুলো ঝামেলার মনে হলে একটি সাধারণ পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনি যেকোন অপারেটর ব্যবহারকারী কাউকে ইন্টারনেট গিফট করতে পারবেন। তবে এজন্য আপনার একটি বিকাশ একাউন্ট থাকতে হবে। আপনার মোবাইলে বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড করে আপনার একাউন্টে লগইন করে মোবাইল রিচার্জ অপশনে যান। এরপর যাকে গিফট করবেন তার নম্বরটি দিন। এবার টাকার পরিবর্তে অ্যাপ থেকে কোন একটি ডেটা প্যাকেজ সিলেক্ট করে দিলেই তার মোবাইলে সেই প্যাক একটিভেট হয়ে যাবে এবং আপনার বিকাশ একাউন্ট থেকে চার্জ কর্তন করা হবে।

মোবাইল ডাটা সাশ্রয়ে কার্যকর কিছু ট্র্যাকার অ্যাপ

মোবাইলে ডাটা ব্যবহারের হিসাব রাখা একান্ত জরুরি। এই পোস্টে আমরা এন্ড্রয়েড এবং আইওএস এর জন্য কিছু অ্যাপ সম্পর্কে জানবো, যেসব ব্যবহার করে মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারের তথ্য পর্যবেক্ষণ করা যাবে। ফলে সে অনুযায়ী আপনি আপনার মোবাইল ডেটা ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। চলুন শুরু করি।

ডাটা ইউসেজ

এটি একটি নির্ভরযোগ্য ডেটা ব্যবহার ট্র্যাকিং অ্যাপ্লিকেশন যা আপনাকে নির্দিষ্ট সময়ের সাথে আপনার সেট করা লিমিটে সমানভাবে ডাটা ব্যবহারে সাহায্য করে। নিয়মিত ডেটা ট্র্যাকিং এবং সতর্কতা প্রদান ছাড়াও অ্যাপটিতে এমন একটি ফিচার রয়েছে যা আপনার নিয়মিত ব্যবহারের ভিত্তিতে ডেটা সীমাতে পৌঁছানোর আগে ওয়ার্নিং প্রদান করে। যদি আপনি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি ডেটা ব্যবহার করেন তবে অ্যাপটি আপনাকে অবিলম্বে সতর্ক করবে। এছাড়াও অ্যাপটিতে থাকছে উইজেট ব্যবহারের সুবিধা যার মাধ্যমে হোমস্ক্রিন থেকে খুব সহজেই আপনার ডাটা ব্যবহারের তথ্যের উপর নজর রাখতে পারবেন। অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এখান থেকে – এন্ড্রয়েড | আইওএস

মাই ডাটা ম্যানেজার

মাই ডাটা ম্যানেজার অ্যাপটি ফ্রি এবং অ্যাডবিহীন ডাটা ইউসেজ ট্র্যাকার, যা আপনার মোবাইল, ওয়াইফাই এবং রোমিং ডাটা ব্যবহারের হিসাব রাখে। আপনি চাইলে ডাটা লিমিট এবং মেয়াদ সেট করে দিতে পারবেন। অ্যাপটি সেই হিসাবে ডাটা সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য আপনাকে যথাসময়ে প্রদান করবে।

এর পাশাপাশি একটি সামারি ট্যাব থাকছে, যেখানে আপনার ব্যবহৃত ডাটার সমস্ত তথ্য জমা থাকবে। শেয়ারড বা ফ্যামিলি প্ল্যান এর মত সুবিধাও থাকছে এতে, যা ব্যবহার করে পুরো পরিবারের ইন্টারনেট ব্যবহার এর গতিবিধির উপর নজর রাখা ও ডাটা নিয়ন্ত্রণ করার সুবিধাও থাকছে।

অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এখান থেকে – এন্ড্রয়েড | আইওএস

ট্র‍্যাফিক মনিটর ৩জি/৪জি/৫জি স্পিড

ট্র‍্যাফিক মনিটর অ্যাপটি ডাটা ইউসেজ ট্র্যাকার এর পাশাপাশি একটি অসাধারণ স্পিড ও কভারেজ ট্র‍্যাকিং অ্যাপ এর কাজও করে।  এই অ্যাপটিতেও ডেটা প্ল্যান পিরিয়ড এবং লিমিট নির্দিষ্ট করে দেয়ার সু্যোগ থাকছে। সাথে আছে রোমিং ডাটা ইউসেজ ট্র‍্যাক করার আলাদা অপশন, যা অবাক করার মত তথ্য প্রদান করে।

এছাড়াও অ্যাপটিতে স্পিড টেস্ট ফিচার থাকছে, যার মাধ্যমে আপনার ইন্টারনেট এর গতি চেক করতে পারবেন। অ্যাপটিতে কভারেজ ম্যাপ নামে একটি ফিচার রয়েছে, যা দ্বারা আপনার এলাকার বিভিন্ন জায়গায় ইন্টারনেট এর গতি সম্পর্কেও জানতে পারবেন খুব সহজেই। অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এখান থেকে – এন্ড্রয়েড | আইওএস

গ্লাসওয়্যার ডাটা ইউসেজ মনিটর

গ্লাসওয়্যার ডেস্কটপ এর জন্য একটি জনপ্রিয় নেটওয়ার্ক ইউসেজ মনিটর অ্যাপ। অ্যাপটির একটি এন্ড্রয়েড ভার্সনও রয়েছে। ডেস্কটপ ভার্সনের মতই এন্ড্রয়েড অ্যাপেও থাকছে নেটওয়ার্ক ইউসেজ ট্র‍্যাকিং এবং অ্যাপ মনিটরিং এর সুবিধা। কোন অ্যাপগুলো মোবাইল ডাটা বা ওয়াইফাই ব্যবহার করছে, তা দেখার পাশাপাশি ডাটা লিমিট অতিক্রম করার আগে সতর্কতাও প্রদান করে অ্যাপটি।

এছাড়াও রিয়াল-টাইম ডাটা ইউসেজ দেখার সুবিধাও থাকছে গ্লাসওয়্যার ডাটা ইউসেজ মনিটর অ্যাপটিতে। যখনই কোনো নতুন অ্যাপ ডাটা ব্যবহার করে, তখন অ্যাপটি আপনাকে জানিয়ে দিবে। পাশাপাশি কোনো নির্দিষ্ট অ্যাপ, যেমন ফেসবুক এর জন্য যদি আপনি আনলিমিটেড ডাটা প্ল্যান কিনে থাকেন সেক্ষেত্রে ফেসবুক অ্যাপটিকে ডাটা মনিটরিংয়ের বাইরেও রাখতে পারবেন। অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এখান থেকে – এন্ড্রয়েড

ডাটামেন নেক্সট

ডাটামেন নেক্সট অ্যাপটি শুধুমাত্র আইওএস এর জন্য। এটি খুবই সাধারণ মিনিমালিস্টিক ইন্টারফেস এর একটি অ্যাপ, যা ডাটা ইউসেজ মনিটরিং অ্যাপ হিসেবে ভালো কাজ করে। এছাড়াও অ্যাপটিতে প্রিডিকশন ফিচার থাকছে, যা আপনার বর্তমান ডাটা ব্যবহারের উপর ভিত্তি করে ডাটা ব্যবহারের সীমা কখন অতিক্রম করবে তা আপনাকে জানিয়ে দেয়।

ডাটামেন একটি পেইড অ্যাপ, এটি কেনার জন্য আপনাকে ০.৯৯ মার্কিন ডলার গুণতে হবে। তবে এই অ্যাপটির ৪.৫ রেটিংস ই অ্যাপটির কার্যকরিতার প্রমাণ দেয়। অ্যাপটি ডাউনলোড করুন এখান থেকে – আইওএস

বিভিন্ন ধরনের ব্যাটারি সেল

Carbon-zinc cell: সর্বাধিক ব্যবহৃত ব্যাটারি যা ড্রাইসেল নামে ও পরিচিত। লাইট, খেলনা, রেডিও, ইত্যাদিতে ব্যবহার হয়।

উপাদান: জিংক বা দস্তার সিলিন্ডার আকারের টিউব যা ক্যাথোড বা নেগেটিভ টার্মিনাল, এতে ম্যাংগানিজ ডাই অক্সাইড ও কার্বন পাউডারের মিশ্রনে আবৃত একটি কার্বন রড থাকে এনোড বা পজিটিভ টার্মিনাল হিসেবে। পানিতে দ্রবিভুত জিংক ক্লোরাইড ও এমোনিয়াম ক্লোরাইডের পেস্ট ইলেকট্রোলাইট হিসেবে ব্যবহার হয়।

Alkaline cellজিংক কারবন ব্যাটারির চেয়ে উন্নত প্রযুক্তি, দামি ও দীর্ঘস্থায়ি। ঘড়ি, পকেট ক্যালকুলেটর, খেলনা, ক্যামেরা ইত্যাদিতে ব্যবহার হয়।

alkaline

উপাদান: এনেড হিসেবে জিংক পাউডার ও ক্যাথোড হল ম্যাংগানিজ ডাই অক্সাইড পাউডার এবং ইলেকট্রোলাইট হিসেবে ব্যবহার হয় পটাশিয়াম হাইড্রক্সাইড।

Nickel-cadmium cellনিকেল ক্যাডমিয়াম ব্যাটারি সাধারন পেনসিল ব্যাটারির মতই তবে সেকেন্ডারি ব্যাটারি এগুলো চার্জ করা যায় ও বার বার ব্যবহার হয়। কর্ডলেস ফোন, খেলনা, ইমার্জেনসি লাইটি ইত্যাদিতে বেশি ব্যবহার হয়। এগুলো ১.২ ভোল্টের তাই প্রাইমারি ব্যটারির তুলনায় কম শক্তি যুগিয়ে থাকে।

Nicd

উপাদান: ক্যাথোড হিসেবে নিকেল অক্সাইড হাইড্রক্সাইড ও এনোড হিসেবে মেটালিক ক্যাডমিয়াম এর একুয়াস পটাশিয়াম হাইড্রক্সাইড ইলেকট্রোলাইট হিসেবে ব্যবহার হয়।

Nickel metal hydride battery: NiMH, নিকেল মেটাল হাইড্রাইড ব্যাটারি, নিক্যাড থেকে উন্নত এতে ক্যাডমিয়ামের বদলে হাইড্রোজেন এলয়কে শোষনকারি ইলেকট্রোড হিসেবে নেগেটিভ প্রান্তের জন্য ব্যবহার করা হয়। NiCd থেকে NiMH ব্যাটারিতে ২-৩ গুন বেশি এমপিয়ার থাকতে পারে যা দীর্ঘক্ষন বিদ্যুৎ প্রবাহ করতে সক্ষম। NiCd এ যেখানে ৬০০-৭০০ মিলিএমপহাওয়ার থাকে NiMH ব্যাটারিতে থাকে ১১০০-২৯০০ মিলিএমপহাওয়ার। ইলেকট্রিক গাড়ি, খেলনা সহ অনেক কিছুতেই এর ব্যবহার হয়।

উপাদান: NiMH ব্যাটারিতে নেগেটিভ ইলেকট্রোড এর Rare-earth বা nickel alloys [ল্যানথেনাম, সিরিয়াম, নিওডিনিয়াম, প্রাসোডাইমিয়াম এর মিশ্রন হাইড্রোজেন এলয়] হিসেবে ব্যবহার হয় ও নিকেল হাইড্রক্সাইড ব্যবহার হয় ক্যাথোড হিসেবে। এর ইলেক্ট্রোলাইট হল পটাশিয়াম হাইড্রক্সাইড।

Lithium-ion battery: বর্তমানে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়, মোবাইল, ডিজিটাল ক্যামেরা, ল্যাপটপ, পামটপ, ব্যাটারিচালিত গাড়ি ইত্যাদিতে ব্যাপক ব্যবহার হচ্ছে।

liion

উপাদান: ক্যাথোড হিসেবে লিখিয়াম অক্সাইড ও এনোড হিসেবে কার্বন কমপাউন্ড ও গ্রাফাইট ব্যবহার হয়।

Button/Coin Cell: ঘড়ি, পকেট ক্যালকুলেটর, হিয়ারিং এইড, সিপিইউ, বিভিন্ন মিনি খেলনা ইত্যাদিতে ব্যবহার হয়। ১.৫ -৩ ভোল্ট এর হয়ে থাকে।

 বাটন সেলস

btn

বাটন সেল ইনসাইড

উপাদান: জিংক, লিথিয়াম ব্যবহার হয় ক্যাথোড হিসেবে আর ম্যাংগানিজ ডাই অক্সাইড, সিলভার অক্সাইড, কার্বন মনোফ্লুরাইড, কিউপ্রিক অক্সাইড/ মারকিউরিক অক্সাইড ব্যবহার হয় অ্যানোড হিসেবে।

Fuel cell: এই ধরনের সেল এখনো পরীক্ষাধিন, এর ইলেকট্রোলাইট এ ফুয়েল [এনোড] ও অক্সিডেন্ট [ক্যাথোড] রাসায়নিক বিক্রিয়ায় বিদ্যুত উতপাদন হয়। এটি ফুয়েল [সাধারনত হাইড্রোজন] থাকা কালিন পর্যন্ত অনবরত চলতে পারে, সাধারনত মহাকাশযান, গাড়ি, আবহাওয়া অফিস ও দুর্গম এলাকায় ব্যবহারের জন্য এর গবেষনা চলছে। খুব সীমিত আকারে এটি ব্যবহার হচ্ছে।

উপাদান: বিভিন্ন ধরনের হাইড্রোজেন যৌগ [ হাইড্রোকার্বন, এলকোহল] এনোড বা ফুয়েল ও ক্যাথোড [ক্লোরিন, ক্লোরিন ডাইক্সাইড] হিসেবে ব্যবহার করা হয় যেমন হাইড্রোজেন ফুয়েল সেল এ হাইড্রোজেন এনোড এবং অক্সিজেন ক্যাথোড।

fuel

 ব্যাটারি আউটপুট

সিরিজ কানেকশনে ব্যাটারির ভোল্ট যোগ হবে, এমপিয়ার সমান থাকবে

প্যারালাল কানেকশনে ব্যাটারির ভোল্ট একই থাকবে, এমপিয়ার যোগ হবে

ইউনিকোডে বাংলা কিভাবে লিখবেন

আপনারা নিশ্চয় এর মধ্যে ইউনিকোড সমন্ধে জেনেছেন। কম্পিউটারে বাংলা প্রচলনের জন্য ইউনিকোড একটা অসাধারণ সুবিধা এনে দিয়েছে যা এতদিন পর্যন্ত হয়নি। সেই ৮০ এর পরে কম্পিউটারে বাংলা প্রচলন হলেও তা হয়েছে গুটিকয়েক প্রতিষ্ঠানের উদ্দোগ্যে হয়েছে এবং তারা তাদের সুবিধামত বিভিন্ন ধরনের ফন্ট বের করেছে। কিন্তু কোন সাধারণ কোন কোড ছিলনা। ইউনিকোডে বিভিন্ন ভাষাকে প্রকাশ করবার জন্য সুনির্দিষ্ট কিছু চার্ট তৈরী করেছে। এবং তার মধ্যে আমাদের প্রিয় বাংলা ভাষাও আছে। আমরা সবাই মিলে যদি একটা চার্ট তৈরী করতাম তবে সমস্যা ছিলনা। কিন্তু দুঃখ হল সেই কাজটা করল বিদেশীরা। সে যাই হোক একটা কমন প্লাটফর্ম হবার সুবিধা হবার কারণে কম্পিউটারে প্রচলনের ক্ষেত্রে সুবিধা হল। এখন যে সমস্ত সফটওয়্যার বের হচ্ছে তা বেশীরভাগই ইউনিকোর্ড সাপোর্ট করছে, ফলে সেগুলিতে বাংলা ব্যবহার করতে পারছি। আর আমাদের বেশীরভাগ বাংলা ব্যবহারকারী উইন্ডোজ ব্যবহার করেন। আর এর নতুন এক্সপি সংস্করণে বাংলা সাপোর্ট করে। মাইক্রোসফট ভৃন্দা নামে একটি ফন্ট ব্যবহার করে। তবে আপনি ইচ্ছা করলে ইউনিকোডের যে কোন বাংলা ফন্ট ব্যবহার করতে পারেন।

ইউনিকোড সমন্ধে আরো বিস্তারিত দেখুন

কিভাবে ইউনিকোডে বাংলা টাইপ করব?
ইউনিকোডে বাংলা দেখা সমস্যা না হলেও বাংলায় লিখতে আপনাকে অন্য কোন সফটওয়ারের সাহয্য নিতে হবে। আমি ব্যাক্তিগত ভাবে অভ্র ও একুশে স্বাধীনতা ব্যবহার করি। দুটিই অনেকটা একই রকম। তবে দুটির কিবোর্ডের লেআউটে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে। দুটিই বিজয়ের কিবোর্ডকে ভিত্তি হিসাবে ব্যবহার করেছে। আপনারা যারা বিজয় ব্যবহার করেছেন তাদের জন্য সুবিধা হবে। তবে যারা বিজয় এর কিবোর্ড মুখস্ত করেন নি তারা অক্ষর ব্যবহার করতে পারেন। অক্ষরে ইংরেজি উচ্চারণে টাইপ করে ইউনিকোডে বাংলা টাইপ করা যায়।

কম্পিউটারের ড্রাইভার সংগ্রহের সহজ পদ্ধতি ।

কম্পিউটার ফরমেট করার পর বেশ কিছু ড্রাইভার সেটাপ করার প্রয়োজন হয় । যেমন – সাউন্ড ড্রাইভার, ভিজিএ ড্রাইভার, মডেম ড্রাইভার ইত্যাদি কম্পিউটার ফরমেট করার আগে এ সমস্ত ড্রাইভার কম্পিউটার থেকে ব্যাকাপ করে নেয়া যায় ।  মাদারবোর্ডের সিডিতে কম্পিউটারের প্রয়োজনীয় ড্রাইভার দেওয়া থাকে অথবা আমরা কোনো নুতন ডিভাইচ ক্রয় করলে এর সাথে সিডি পেয়ে থাকি । এখন কোনো কারনে যদি আপনার এই সিডিগোলে খারাপ হয়ে যায় তখন ইন্টারনেট থেকে ড্রাইভার খুঁজতে হয় । ইন্টারনেট থেকে ড্রাইভার খুঁজতে এবং ডাউনলোড করতে সমস্যা হয় অনেকের । এ সমস্যাটি সমাধানের জন্য আপনি একটি সফ্টওয়ার ব্যবহার করতে পারেন । এ (Drivermax) সফ্টওয়ারটির সাহায্যে কম্পিউটার ফরমেট করার আগে সমস্ত ড্রাইভারগুলো ব্যাকাপ করে নিন । ফরমেট শেষ করার পর ঐ একই সফ্টওয়ারের সাহায্যে ড্রাইভারগুলো সেটাপ করে নিতে পারেন ।ড্রাইভারগুলো থেকে যদি কোন ড্রাইভার সেটাপ করা না যায় সে ক্ষেত্র বিকল্প পদ্ধতি অর্থাৎ ডিভাইচ ম্যানেজারে গিয়ে যে ড্রাইভারটি সেটাপ করা যায়নি সেটিকে ব্যাকাপ করা ফুল্ডার থেকে ম্যানুয়ালি সেটাপ করতে পারেন। 


Post navigation