ব্যান হচ্ছেনা পাবজি ও ফ্রি ফায়ার গেম

জনপ্রিয় ব্যাটেল রয়েল গেম, পাবজি ও ফ্রি ফায়ার বাংলাদেশে ব্যান করা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই গুঞ্জন শোন যাচ্ছে। কিশোর এবং তরুণ সমাজের মধ্যে এটির আসক্তির সৃষ্টি করেছে বলে উল্লেখ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একজোট হয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন, বিটিআরসিকে এই দুটি গেম বন্ধ করতে সুপারিশ করে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী, মোস্তফা জব্বার বলছেন অন্য কথা। তিনি জানান যে ব্যান সম্পর্কিত কোনো তথ্য তার নজরে আসেনি। তিনি আরো জানান, “যদিও আমাদের কাছে উল্লেখিত কাজটি করার জন্য টুলস রয়েছে, আমরা নিজেরাই এই সাইটগুলি বা গেমগুলি ব্লক করতে পারি না। আমাদের অন্যান্য সরকার ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলির সুপারিশ অনুসারে কাজ করা উচিত। আমরা এখনও পর্যন্ত এরকম কোনও সুপারিশ পাইনি।”

তিনি আরো বলেন, “আজকের যুগে কোনো প্ল্যাটফর্ম ব্যান করে তেমন একটা সুবিধা হয়না। ভিপিএন ব্যবহার করে ঠিকই ব্লক করা সার্ভিস ব্যবহার করা যায়।” পাবজি ও ফ্রি ফায়ার ব্যানকে কেন্দ্র করে বেশ উদ্বিগ্ন দেশের নেটিজেনরা। এর প্রতিফলন দেখা গিয়েছে ফেসবুক ও টুইটারে প্রতিবাদস্বরূপ।

সম্প্রতি একই ইস্যুতে নেপাল ও ভারতে পাবজি গেমটি ব্যান করা হয়। তবে বাংলাদেশে পাবজি ও ফ্রি ফায়ার গেম দুটি ব্যান হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী এই ব্যাপার নিশ্চিত করেছেন যে পাবজি বা ফ্রি ফায়ার ব্যান নিয়ে করোনাকালীন কোনো মিটিং সংঘটিত হয়নি। তাই বাংলাদেশে পাবজি বা ফ্রি ফায়ার ব্যান হওয়ার খবরটি অফিসিয়ালি নিশ্চিত নয় বলে আমরা বলতে পারি।

গুগল মিট কী এবং কীভাবে ব্যবহার করতে হয়

ভিডিও কনফারেন্সিং এর ব্যবহার দিনদিন বেড়েই চলেছে। গুগল এর গুগল মিট একটি আদর্শ ভিডিও কনফারেন্স টুল। সাধারণ সব ফিচার এর পাশাপাশি বাড়তি সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে গুগল মিট অন্যসব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে নিজেকে আলাদা করতে সক্ষম হয়েছে।

চলুন জেনে নেয়া যাক, গুগল মিট কীভাবে ব্যবহার করবেন এবং এটি আপনার ব্যবহারের ভিত্তিতে কার্যকরী সমাধান কি না।

গুগল মিট কী?

গুগল মিট হলো গুগল এর ব্যবসা-ফোকাসড ভিডিও কনফারেন্সিং টুল। গুগল মিট এর পূর্ববর্তী নাম ছিলো গুগল হ্যাংআউটস মিট। গুগল মিট এ গুগল চ্যাট ও গুগল হ্যাংআউটস এর ভিডিও চ্যাট ফিচার এর পাশাপাশি রয়েছে অংসখ্য এন্টারপ্রাইজ লেভেলের ব্যবহারযোগ্য ফিচার।

এসব এন্টারপ্রাইজ ফোকাসড ফিচারগুলো ক্ষুদ্র কিংবা বৃহৎ ব্যবসাগুলোর জন্য আদর্শ সমাধান তবে বর্তমানে গুগল মিট ব্যবসার পাশাপাশি স্কুল এর জন্যও ব্যাপক পরিমাণে ব্যবহৃত হচ্ছে। এছাড়াও জুম অ্যাপকে অনেকেই ট্রাস্টেড মনে করেন না। তাদের জন্য গুগল মিট ভিডিও কনফারেন্সিং টুল হিসেবে প্রথম পছন্দ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গুগল মিট কি ফ্রি?

কিছু লিমিটেশনসহ গুগল মিট যে কেউ বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারে। ফ্রিতে ব্যবহারকারীগণ সর্বোচ্চ ১০০জনকে নিয়ে একটানা ১ঘন্টার মিটিং এ অংশ নিতে পারবেন।

অন্যদিকে গুগল জি-স্যুট ব্যবহারকারীরা এই ক্ষেত্রে পাবেন বিশাল সুবিধা। জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণ একটানা ৩০০ঘন্টা ও সর্বোচ্চ ১৫০জনকে নিয়ে একটি মিটিং এ অংশগ্রহণ করতে পারেন। এছাড়াও ডোমেস্টিক ও ইন্টারন্যাশনাল কল-ইনস ও কাস্টমার সার্ভিস সুবিধাও পাবেন জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণ।

জি-স্যুট এন্টারপ্রাইজ ব্যবহারকারীদের ক্ষেত্রে এই সুবিধার মাত্রা আরো বেশি। জি-স্যুট এন্টারপ্রাইজ ব্যবহারকারীগণ গুগল মিট এ একটানা ৩০০ঘন্টা ও সর্বোচ্চ ২৫০জনকে নিয়ে ভিডিও কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। থাকছে অসংখ্য এক্সট্রা ফিচারস, যেমনঃ ইন্টেলিজেন্ট নয়েস ক্যান্সেলেশন, গুগল ড্রাইভে মিটিং এর রেকর্ডিং সংরক্ষণ, সিকিউরিটি ফিচারস, ইত্যাদি।

গুগল মিট ব্যবহারের নিয়ম

গুগল এর অন্য দশটি সার্ভিস এর মত গুগল মিট ব্যবহার করাও অন্তত সহজ। অল্প কিছু সময় ব্যয় করে যে কেউই গুগল মিট সম্পর্কে বেসিক ধারণা অর্জন করতে পারে। চলুন জেনে নেয়া যাক, গুগল মিট কীভাবে ব্যবহার করতে হয়।

গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করার নিয়ম

গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করা অত্যন্ত সহজ। এইজন্য আপনার দরকার পড়বে একটি গুগল একাউন্ট এবং ইন্টারনেট সংযোগের। 

ব্রাউজার থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ

  • https://meet.google.com এ প্রবেশ করুন
  • New Meeting এ ক্লিক করুন এবং প্রদর্শিত নির্দেশনা অনুসরণ করুন
  • এছাড়াও https://meet.new লিংকে প্রবেশ করার মাধ্যমে এক ক্লিকেই নতুন মিটিং তৈরী করা যায়

জিমেইল থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ

  • জিমেইলে প্রবেশ করুন
  • বামদিকে থাকা মেন্যু থেকে Start A Meeting অপশনে ক্লিক করলেই নতুন মিটিং চালু হয়ে যাবে

স্মার্টফোন থেকে গুগল মিট এ মিটিং তৈরী করতেঃ

  • প্লে-স্টোর কিংবা অ্যাপ স্টোর থেকে গুগল মিট অ্যাপ ইন্সটল করুন
  • ইন্সটল এর পর অ্যাপ ওপেন করে কাঙ্খিত জিমেইল একাউন্ট দ্বারা লগিন করুন
  • New Meeting এ ক্লিক করলেই নতুন মিটিং চালু হয়ে যাবে

একটি মিটিং তৈরীর পর অটোমেটিক একটি লিংক জেনারেট হয়, যা ব্যবহার করে অন্যান্য পার্টিসিপেন্টরা মিটিং এ জয়েন করতে পারে। গুগল ক্যালেন্ডার বা জিমেইলে শিডিউল থাকা মিটিং এ ইনভাইটেড থাকা ব্যক্তিদের কাছে লিংক স্বয়ংক্রিয়ভাবে চলে যাবে।

গুগল মিট এ মিটিং জয়েন করার নিয়ম

গুগল মিট এ মিটিং এ জয়েন করা দুনিয়ার সবচেয়ে সহজ কাজগুলোর মধ্যে একটি। গুগল মিট এ মিটিং এ জয়েন করতেঃ

  • অ্যাপ বা ব্রাউজার থেকে গুগল মিট এ প্রবেশ করুন
  • Start A Meeting বা New Meeting এর পাশে থাকা Join Meeting এ ক্লিক করুন
  • মিটিং কোড টাইপ করে এন্টার চাপলেই মিটিং এ জয়েন হয়ে যাবে
  • এছাড়াও হোস্টের পাঠানো মিটিং লিংক ব্যবহার করে এক ক্লিকেই মিটিং এ জয়েন করা যায়

গুগল মিট এর সেটিংস সমূহ

মিটিং তৈরী ও মিটিং এ জয়েন করার পাশাপাশি গুগল মিট এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ সেটিংস ও কাস্টমাইজেশন সম্পর্কে জানা সকল ব্যবহারকারীর জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। কিছু কিছু ফিচার শুধুমাত্র জি-স্যুট ব্যবহারকারীদের জন্য হলেও, অধিকাংশ ফিচারই বিনামুল্যে ব্যবহায়ার সম্ভব।

ভিডিও কনফারেন্স এর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো কীভাবে পার্টিসিপ্যান্টদের প্রদর্শিত করা হয়। একটি মিটিং এ ডিফল্টভাবে এটি Auto তে সেট করা থাকে। অর্থাৎ কতজন মিটিং এ পার্টিসিপ্যান্ট বা অংশগ্রহণ করছেন ও কথা বলছেন, তার উপর ভিত্তি করে অটোমেটিক লেআউট তৈরী হয়ে যাবে।

এই ব্যাপারটির সরাসরি কাস্টমাইজেশন করতে চাইলে, তিন ধরনের বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছেঃ

  • টাইলডঃ ছোট ছোট টাইলে ১৬জন পার্টিসিপ্যান্টকে দেখানো হয়। বাকিদের মধ্যে কেউ যদি প্রেজেন্ট করে থাকে,তবে সাইডবারে প্রদর্শিত হয়
  • স্পটলাইটঃ শুধুমাত্র প্রেজেন্টেশন বা এক্টিভ স্পিকারকেই স্ক্রিনের দেখানো হউ
  • সাইডবারঃ প্রেজেন্টেশন বা এক্টিভ স্পিকারকে মাঝখানে রেখে পাশে ছোট ছোট টাইলসে অন্যান্য পার্টিসিপ্যান্টদের প্রদর্শিত করা হয়

এছাড়াও পার্টিসিপ্যান্ট পিন করার সুবিধাও থাকছে, যার মাধ্যমে চাইলেই নির্দিষ্ট পার্টিসিপ্যান্টকে স্ক্রিনের মাঝখানে রাখা যায়। মিটিং এর অংশগ্রহণকারী নিজেদের মাইক চাইলে মিউট করতে পারে। এছাড়াও যিনি মিটিং তৈরী করেছেন, তিনিও চাইলে যে মিটিং এ অংশগ্রহণরত যে কাউকে মিউট করতে পারেন।

গুগল মিট এর একটি সবচেয়ে অসাধারণ ফিচার হচ্ছে লাইভ ক্যাপশন। স্ক্রিনের নিচেরদিকে থাকা Turn on captions বাটন চাপলেই স্পিকার এর কথার ক্যাপশন প্রদর্শিত হবে। তবে আপাতত এই ফিচারটি শুধুমাত্র ইংরেজি ভাষাতেই ব্যবহারযোগ্য। 

গুগল মিট এ প্রেজেন্ট করার নিয়ম

ভিডিও মিটিং যোগাযোগের অসাধারণ মাধ্যম, এতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে মিটিং এ মাঝেমধ্যে সব অংশগ্রহনকারীদের কোনোকিছু দেখানোর প্রয়োজন পড়তে পারে। অন্যসব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ এর মত মিটিং চালাকালীন গুগল মিটেও প্রেজেন্টেশন দেখানো সম্ভব। 

আপনার স্ক্রিন শেয়ার করতে স্ক্রিনের নিচের দিকে থাকা Present Now এ ক্লি করুন। চাইলে আপনি আপনার সম্পূর্ণ স্ক্রিন, একটি নির্দিষ্ট উইন্ডো বা ক্রোম ট্যাব প্রেজেন্টেশন হিসাবে দেখাতে পারবেন। আপনি যদি ভিডিও বা এনিমেশন দেখাতে চান, সেক্ষেত্রে ক্রোম ট্যাব সিলেক্ট করার পরামর্শ দেয় গুগল।

পেজের নিচের দিকে থাকা Change Source অপশনটি ব্যবহার করে আপনি অন্য ক্রোম ট্যাব প্রেজেন্ট করতে পারবেন। Stop Presenting এ ক্লিক করলে প্রেজেন্টেশন অফ হয়ে যাবে।

গুগল মিট এ চ্যাট করার নিয়ম

আপনি যদি স্ক্রিন শেয়ারিং বা কথা বলার মাধ্যমে কনফারেন্সে কলে সমস্যার সঞ্চারন না চান, সেক্ষেত্রে আপনি চ্যাট ফিচারটিও ব্যবহার করতে পারেন। উপরে ডানদিকে থাকা ছোট চ্যাট আইকনে ক্লিক করার মাধ্যমে চ্যাট করার অপশন দেখতে পাবেন৷ কোনো রিসোর্স শেয়ারিং কিংবা প্রশ্নোত্তরের ক্ষেত্রে এই চ্যাট ফিচারটি দারুণ কার্যকর।

গুগল মিট টুলস

জি-স্যুট ব্যবহারকারীগণরা গুগল মিট এ অসংখ্য প্রয়োজনীয় ফিচার ব্যবহার করতে পারেন। তবে ফ্রিতে যারা গুগল মিট ব্যবহার করেন, তারা এসব ফিচার থেকে বঞ্চিত হন।

আপনি চাইলে বিভিন্ন ক্রোম এক্সটেনশন ব্যবহার করে গুগল মিট এ বিনামূল্যে অসাধারণ সব ফিচার এড করতে পারবেন। গুগল মিট এর দরকারী ৯টি ফ্রি টুল সম্পর্কে জানুন এই লিংক থেকে।

গুগল মিট সম্পর্কে সাধারণ প্রশ্নসমূহ ও উত্তর

গুগল মিট কি আইফোন ও আইপ্যাডে কাজ করে?

উত্তরঃ হ্যাঁ, গুগল মিট আইফোন ও আইপ্যাডে কাজ করে। অ্যাপ স্টোর থেকে গুগল মিট অ্যাপ ডাউনলোড করে যেকেউ আইফোন ও আইপ্যাডেও গুগল মিট ব্যবহার করতে পারবেন।

গুগল মিট ও গুগল হ্যাংআউটস কি একই? গুগল ডুয়ো এর সাথে সেবা দুটির কোনো সম্পর্ক আছে কি?

উত্তরঃ বর্তমানে গুগল এর তরফ থেকে আসা প্রধান ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ হলো গুগল মিট। গুগল হ্যাংআউটস কে ইতিমধ্যেই বাদ করে দিয়েছে গুগল। অন্যদিকে গুগল ডুয়ো হলো মেসেঞ্জার বা হোয়াটসঅ্যাপ এর মতো চ্যাটিং ও ভিডিও কলিং অ্যাপ।

গুগল মিট এর মিটিং কি রেকর্ড করা যায়?

উত্তরঃ শুধুমাত্র জি-স্যুট এন্টারপ্রাইজ ও এন্টারপ্রাইজ ফর এডুকেশন ব্যবহারকারীগণ গুগল মিট এ মিটিং রেকর্ড করতে পারবেন। রেকর্ডিংসমূহ স্বয়ংক্রিয়ভাবে গুগল ড্রাইভে সংরক্ষিত হয়।

গুগল মিট কি নিরাপদ ও সুরক্ষিত?

উত্তরঃ কম্পিউটার ও মোবাইল, উভয় প্ল্যাটফর্মেই গুগল মিট এর মিটিংসমূহ এনক্রিপটেড থাকে। সুতরাং, গুগল মিটকে নিরাপদ ও সুরক্ষিত বলা যায়। মিটিং বোম্বিং এর মত ঘটনা প্রতিরোধে গুগল মিট এর মিটিং এ পাসওয়ার্ড ও সেট করা যায়।

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করবেন যেভাবে

ফোনে মেসেজিং এর মাধ্যম হিসেবে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার সম্বন্ধে জানেন না, এমন মানুষ কমই আছেন। ১ বিলিয়নেরও অধিক ব্যবহারকারী নিয়ে বিশ্বের প্রথম অন্যতম জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ হোয়াটসঅ্যাপ। ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করা খুবই সহজ। তবে কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার নিয়ে এখনো জটিলতায় ভুগেন অনেক ব্যবহারকারী। চলুন জেনে নেয়া যাক, কীভাবে কম্পিউটারে বা পিসিতে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করবেন।

কম্পিউটারে/পিসিতে হোয়াটসঅ্যাপ ওয়েব ব্যবহারের নিয়ম

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে হলে ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ থাকতে হবে। আপনি যদি কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে চান, তবে আগে অবশ্যই আপনার ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ একাউন্টে সাইন-ইন করে নিন।

ফোনে হোয়াটসঅ্যাপে সাইন ইন হয়ে গেলে, কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে নিম্নোক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করুনঃ

আপনি যদি এন্ড্রয়েড ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন, তবে নিচের পদ্ধতিটি অনুসরণ করুনঃ

  • আপনার ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন
  • Chats ট্যাবে যান, ডানদিকের টপ কর্নারে থাকা থ্রি-ডট এ প্রবেশ করলে একটি ড্রপডাউন মেনু দেখতে পাবেন
  • উল্লেখিত মেন্যু হতে WhatsApp Web নির্বাচন করুন
  • কম্পিউটারে যেকোনো একটি ব্রাউজারে প্রবেশ করুন ও web.whatsapp.com সাইটে ঢুকুন
  • এরপর আপনার ফোনে প্রদর্শিত কিউ-আর কোড স্ক্যানার এর মাধ্যমে কম্পিউটারে প্রদর্শিত কোডটি স্ক্যান করুন
  • স্ক্যান সফলভাবে সম্পন্ন হলে, কম্পিউটারে আপনার ফোনে থাকা সকল চ্যাট দেখতে পাবেন। এর পাশাপাশি কম্পিউটার থেকেও ফোনের মতই ডেস্কটপ ব্যবহার করতে পারবেন।

আপনি যদি আইফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন, তাহলে নিচের পদ্ধতিটি অনুসরণ করুনঃ

  • আপনার আইফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন
  • Settings ট্যাবে যান
  • WhatsApp Web নির্বাচন করুন
  • কম্পিউটারে যেকোনো একটি ব্রাউজারে প্রবেশ করুন ও web.whatsapp.com সাইটে ঢুকুন
  • এরপর আপনার ফোনে প্রদর্শিত কিউ-আর কোড স্ক্যানার এর মাধ্যমে কম্পিউটারে প্রদর্শিত কোডটি স্ক্যান করুন
  • স্ক্যান সফলভাবে সম্পন্ন হলে, কম্পিউটারে আপনার ফোনে থাকা সকল চ্যাট দেখতে পাবেন। এর পাশাপাশি কম্পিউটার থেকেও ফোনের মতই ডেস্কটপ ব্যবহার করতে পারবেন।

হোয়াটসঅ্যাপ ডেস্কটপ অ্যাপ ব্যবহারের নিয়ম

ডেস্কটপের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ এর অ্যাপ বিদ্যমান। হোয়াটসঅ্যাপ ডেস্কটপ অ্যাপ ডাউনলোড করতে এই লিংকে প্রবেশ করুন। হোয়াটসঅ্যাপ ডেস্কটপ অ্যাপটি উল্লিখিত নিয়মেই ব্যবহার করতে পারবেন।

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারের বহুমুখী সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে প্রধান হচ্ছে, কম্পিউটার থেকেও ফাইল শেয়ার করার সুবিধা। এছাড়াও আপনার কম্পিউটারে ওয়েব ক্যাম যুক্ত থাকলে সেটি ব্যববার করে ছবি আদান-প্রদান ও করতে পারবেন। পাঠানো যাবে ভয়েস মেসেজ ও। ফোন পকেটে রেখেই হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার হচ্ছে কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারের মূল সুবিধা।

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার এর সুবিধাসমূহ

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার এর অসুবিধাসমূহ

কম্পিউটারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। ওয়েব ভিত্তিক হওয়ায় ইন্টারনেট কানেক্টেড না থাকলে কম্পিউটারের হোয়াটসঅ্যাপে পূর্ববর্তী চ্যাট দেখা সম্ভব নয়। থাকছেনা এড্রেস বুক থেকে কাউকে ইনভাইট করার সুবিধা। কম্পিউটারের হোয়াটসঅ্যাপে ম্যাপ বা লোকেশন শেয়ারিং ও সম্ভব নয়।

জন্ম নিবন্ধন যাচাই, সংশোধন ও অনলাইন কপি ডাউনলোড

চলুন জেনে নেয়া যাক, জন্ম নিবন্ধন যাচাই, সংশোধন ও অনলাইন কপি ডাউনলোড সম্পর্কিত তথ্য।

জন্ম নিবন্ধন কি?

জন্ম নিবন্ধন হলো জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন, ২০০৪ (২০০৪ সনের ২৯ নং আইন) এর আওতায় একজন মানুষের নাম, লিঙ্গ, জন্মের তারিখ ও স্থান, বাবা-মায়ের নাম, তাদের জাতীয়তা এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্ধারিত নিবন্ধক কর্তৃক রেজিস্টারে লেখা বা কম্পিউটারে এন্ট্রি প্রদান এবং জন্ম সনদ প্রদান করা।

এক কথায় বলতে গেলে, একটি শিশু জন্মের পর সরকারি খাতায় নাম যুক্ত করাকেই বলা হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন। আর জন্ম সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য থাকে যে সনদে, তাকে বলা হচ্ছে জন্ম সনদ।

জন্ম নিবন্ধন কি কি কাজে লাগে

জন্ম নিবন্ধন এর বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। নিম্নোক্ত ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন কাজে লাগেঃ

  • শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি
  • জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্তি
  • পাসপোর্ট ইস্যু
  • বিবাহ নিবন্ধন
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু
  • ভোটার তালিকা প্রণয়ন
  • ব্যাংক হিসাব খোলা
  • সরকারী, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ
  • জমি রেজিস্ট্রেশন
  • গ্যাস, পানি, টেলিফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তি
  • টিআইএন বা ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার প্রাপ্তি
  • ঠিকাদারি লাইসেন্স প্রাপ্তি
  • ট্রেড লাইসেন্স প্রাপ্তি
  • বাড়ির নকশা অনুমোদন প্রাপ্তি
  • গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্তি
  • আমদানী ও রপ্তানি লাইসেন্স প্রাপ্তি

জন্ম নিবন্ধন সনদ এর জন্য কি কি লাগে

জন্ম নিবন্ধ সনদ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কিছু কাগজপত্র প্রয়োজন হয়। জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে হাসপাতাল বা ক্লিনিকে জন্মগ্রহণ করে থাকলে সেখান থেকে প্রদত্ত সার্টিফিকেট বা ছাড়পত্র ব্যবহার করে জন্ম নিবন্ধন সনদ পাওয়া যাবে। এছাড়াও এস.এস.সি সনদ এর ফটোকপি, পাসপোর্টের ফটোকপি, আইডি কার্ডের ফটোকপি বা এলাকার জনপ্রতিনিধি, যেমন- ওয়ার্ড কমিশনার, ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভার চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিকত্ব সনদ এর ফটোকপি ব্যবহার করেও জন্ম নিবন্ধন সনদ নেওয়া যায়।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড কপি ডাউনলোড করতে বা জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে অর্থাৎ প্রদত্ত তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করা যাবে।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড বা জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি চেক করার নিয়ম নিম্নরুপঃ

  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা বা Online BRIS ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন
  • ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশের পর এরকম দেখতে একটি ওয়েবপেজ দেখতে পাবেনঃ

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোডঅনলাইন কপি ডাউনলোড কপি ডাউনলোড ওয়েবসাইট

  • জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে প্রথম খালি বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধন সনদ এ থাকা ১৭ ডিজিটের জন্ম নিবন্ধন নাম্বার প্রদান করুন
  • এরপর দ্বিতীয় বক্সে যার জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধন সনদ এ থাকা জন্ম তারিখ প্রদান করুন
  • কারো জন্ম তারিখ যদি ১৯৯০ সালের জানুয়ারীর ১ তারিখ হয়, তবে দ্বিতীয় বক্সটিতে 1990-01-01 এভাবে লিখতে হবে
  • দুইটি বক্সেই সঠিক তথ্য প্রদান করা হয়ে গেলে Verify বাটনে ক্লিক করুন
  • Verify বাটনে ক্লিক করার পর যার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চান, তার জন্ম নিবন্ধনে থাকা তথ্যগুলো স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে
  • প্রদর্শিত তথ্যগুলো সঠিক কিনা তা যাচাই করে নিন
  • যদি Verify বাটনে ক্লিক করার পর Matching Birth Records Not Found লেখা আসে, তবে বুঝবেন উল্লিখিত বক্সে দুইটিতে প্রদত্ত জন্ম নিবন্ধন নাম্বার বা জন্ম তারিখ – যেকোনো একটিতে ভূল হয়েছে।

উল্লেখিত পদ্ধতি সঠিকভাবে অনুসরণ করে থাকলে প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী যার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চেয়েছিলেন, তার জন্ম নিবন্ধন এর তথ্য পেয়ে যাবেন। জন্ম নিবন্ধন সম্পর্কিত তথ্যসমুহ স্ক্রিনে দেখার পর তা সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করা মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করুন।

বোনাসঃ অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করার উপায় জানতে এখানে ক্লিক করুন

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন

জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের জন্য “জন্ম তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন” শিরোনামের একটি ওয়েবসাইট রয়েছে। জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন। জন্ম নিবন্ধন সংশোধনের ওয়েবসাইটে প্রবেশের পর দুইটি খালি বক্স দেখতে পাবেন।জন্ম নিবন্ধন সংশোধনজন্ম নিবন্ধন সংশোধন ওয়েবসাইট

প্রথম বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও দ্বিতীয় বক্সে জন্ম সনদে থাকা জন্ম তারিখ প্রদান করুন। সঠিক জন্ম নিবন্ধন নাম্বার ও জন্ম তারিখ প্রদান করতে সার্ভারে থাকা জন্ম সনদ সম্পর্কিত তথ্য দেখতে পাবেন।

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর উল্লিখিত ওয়েবসাইটে সঠিক তথ্য দেওয়ার পর জন্ম নিবন্ধন সংশোধন সম্পর্কিত তথ্য স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে। প্রদত্ত তথ্য অনুসরণ করে জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর আবেদন করতে পারবেন।

জন্ম তথ্য সংশোধনের শর্ত ও নিয়মাবলি

জন্ম সনদে থাকা তথ্যতে ভূল থাকলে জন্ম সনদ সংশোধন করার প্রয়োজন হয়। জন্ম তথ্য সংশোধনের করার ক্ষেত্রে কিছু শর্ত ও নিয়মাবলি প্রযোজ্য। যেমনঃ

  •  যদি পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করার প্রয়োজন পড়ে, সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর থাকলে প্রথমে তাদের জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়ে জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন এর আবেদন করে তাদের নাম সংশোধন করতে হবে
  • পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকলে এবং জন্ম তারিখ ০১/০১/২০০০ এর পূর্বে হলে, জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় আপনার পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করা যাবে। সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতা মৃত হলেও তাদের মৃত্যুর কোন প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে না
  • পিতা বা মাতার জন্ম নিবন্ধন নম্বর না থাকলে এবং পিতা বা মাতা মৃত হলে এবং জন্ম তারিখ ০১/০১/২০০ এর পরে হলে, জন্ম নিবন্ধন তথ্য সংশোধন আবেদন করার সময় পিতা বা মাতার নাম সংশোধন করা যাবে। সেক্ষেত্রে পিতা বা মাতার মৃত্যুর প্রমাণপত্র দাখিল করতে হবে।

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে এখানে ক্লিক করুন। ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন।অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদনঅনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ওয়েবসাইট

জন্ম নিবন্ধন সনদ আপনার কোন ঠিকানার অফিস থেকে সংগ্রহ করতে চান, তা নির্বাচন করুন। জন্মস্থান, স্থায়ী ঠিকানা বা বর্তমান ঠিকানা থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করা যাবে। পরবর্তী ধাপে প্রদর্শিত পেজে দেওয়া সকল তথ্য সাবধানতার সহিত সঠিকভাবে পূরণ করুন। এভাবে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন করা যাবে।

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদন সম্পর্কিত নির্দেশনাঃ

  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম প্রথমে বাংলায় (ইউনিকোড) ও পরবর্তীতে ইংরেজিতে পূরণের পর প্রয়োজনীয় সম্পাদনা করে সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করুন
  • সংরক্ষণ বাটনে ক্লিক করলেই আবেদন পত্রটি সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক কার্যালয়ে স্থানান্তিরত হয়ে যাবে, আবেদনকারীর আর কোন সংশোধনের সুযোগ থাকবে না
  • পরবর্তী ধাপে প্রিন্ট বাটনে ক্লিক করলে আবেদন পত্রের মুদ্রিত কপি পাবেন
  • সনদের জন্য ১৫ দিনের মধ্যে উক্ত আবেদন পত্রে নির্দেশিত প্রত্যয়ন সংগ্রহ করে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্রের সত্যায়িত কপিসহ নিবন্ধক অফিসে যোগাযোগ করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা জানার ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করতে এখানে ক্লিক করুন। অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমানে অবস্থা জানতে ওয়েবসাইট এ প্রবেশ করে আবেদনের সময় প্রাপ্ত অ্যাপ্লিকেশন আইডি ও জন্মতারিখ প্রদান করে “দেখুন” চাপলে জন্ম নিবন্ধন আবেদনের বর্তমান অবস্থা জানতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড

জন্ম নিবন্ধন সনদ ডাউনলোড pdf আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন ফরম কোথায় পাওয়া যাবে

সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের কার্যালয়ে বা br.lgd.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে জন্ম নিবন্ধন ফরম ডাউনলোড করা যাবে। জন্ম নিবন্ধন ফরম ডাউনলোড pdf আকারে ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

জন্ম নিবন্ধন ফি

জন্ম নিবন্ধন সংশোধন এর ক্ষেত্রে কিছু নির্দিষ্ট ফি প্রযোজ্য। জন্ম নিবন্ধন ফি সমুহ নিম্নরুপঃ

বিষয়ফিসের হার
দেশেবিদেশে
জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন পর্যন্ত কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন ফ্রি ফ্রি
জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ (পঁয়তাল্লিশ) দিন পর হইতে ৫ (পাঁচ) বৎসর পর্যন্ত কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন (সাকুল্যে) ২৫/- টাকা ১ মার্কিন ডলার
জন্ম বা মৃত্যুর ৫ (পাঁচ) বৎসর পর কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যু নিবন্ধন (সাকুল্যে) ৫০/- টাকা ১ মার্কিন ডলার
জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ১০০/- টাকা ২ মার্কিন ডলার
জন্ম তারিখ ব্যতীত নাম, পিতার নাম, মাতার নাম, ঠিকানা ইত্যাদি অন্যান্য তথ্য সংশোধনের জন্য আবেদন ফি ৫০/- টাকা ১ মার্কিন ডলার
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় মূল সনদ বা তথ্য সংশোধনের পর সনদের কপি সরবরাহ ফ্রি ফ্রি
বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় সনদের নকল সরবরাহ ৫০/- টাকা ১ মার্কিন ডলার

বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করার নিয়ম

বিকাশে সেন্ড মানি ফি প্রযোজ্য হবেনা ৫ টি প্রিয় বিকাশ নাম্বারের ক্ষেত্রে। অর্থাৎ বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করলে সম্পূর্ণ  বিনামূল্যে বিকাশে সেন্ড মানি করা যাবে। চলুন জেনে নিই, কিভাবে বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করতে হয়, বিকাশে প্রিয় নাম্বার সেট করার সুবিধা ও শর্তসমুহ।

বিকাশ প্রিয় নাম্বার এর সুবিধা

৫টি বিকাশ প্রিয় নাম্বারে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত সেন্ড মানি বিনামূল্যে করা যাবে। প্রিয় নাম্বারে বিনামূল্যে সেন্ড মানি এর শর্তসমুহ হলোঃ

  • প্রিয় নাম্বারগুলোতে প্রতি ক্যালেন্ডার মাসে ২৫,০০০ টাকা পর্যন্ত সেন্ড মানি করতে কোনো চার্জ প্রযোজ্য হবে না
  • প্রতি মাসে ২৫,০০০.০১ টাকা থেকে ৫০,০০০ টাকা পর্যন্ত প্রিয় নাম্বারে লেনদেনের ক্ষেত্রে ৫ টাকা চার্জ প্রযোজ্য হবে
  • প্রিয় নাম্বারে মাসিক লেনদেন ৫০,০০০ টাকার বেশি হলে, প্রতি লেনদেনের ক্ষেত্রে  ১০ টাকা চার্জ প্রযোজ্য হবে

অ্যাপ ব্যবহার করে বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট – bKash Priyo Number Add using App

বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করতেঃ

  • বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করুন
  • পিন দিয়ে লগিন করুন
  • “সেন্ড মানি” লেখায় ক্লিক করুন
  • “প্রিয় নাম্বারের তালিকা দেখুন” লেখায় ক্লিক করুন
  • প্রদর্শিত পেজে আপনার প্রিয় নাম্বারের তালিকা (যদি থাকে) দেখতে পাবেন
  • বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করতে নিচের দিকে থাকা “যোগ করুন” এ ক্লিক করুন
  • এরপর যে নাম্বারটি বিকাশ প্রিয় নাম্বার হিসেবে সেট করতে চান, সেটি লিখুন বা সিলেক্ট করুন
  • এরপর বিকাশ একাউন্টের পিন দিয়ে সাবমিট করলেই উক্ত নাম্বার বিকাশ প্রিয় নাম্বার হিসেবে সেট হয়ে যাবে।

ইউএসএসডি ব্যবহার করে বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট – bKash Priyo Number Add using USSD

*২৪৭# ডায়াল করেও বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করা যাবে। *২৪৭# ডায়াল করে বিকাশ প্রিয় নাম্বার সেট করতেঃ

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

সাবস্ক্রাইব

  • *247# ডায়াল করুন
  • My Bkash এ প্রবেশ করতে 8 লিখে রিপ্লাই দিন
  • 4 লিখে রিপ্লাই দিয়ে Priyo Numbers মেন্যুতে প্রবেশ করুন
  • 1 লিখে রিপ্লাই করুন
  • প্রিয় নাম্বার এড করতে 1 লিখে রিপ্লাই করুন
  • এরপর যে নাম্বারটি প্রিয় নাম্বার হিসেবে সেট করতে চান
  • এরপর উক্ত প্রিয় নাম্বারের যে নাম দিতে চান, তা লিখুন
  • এরপর আপনার বিকাশ পিন লিখে রিপ্লাই করলেই প্রিয় নাম্বার এড হয়ে যাবে।

গুগল ফটোসের নতুন নীতিমালায় কী আছে

নির্ভাবনায় যারা গুগল ফটোসে ছবি রাখেন, তাদেরকে অনেক আগেই দুঃসংবাদ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। কারণ ১ জুন থেকে গুগল ফটোসে আনলিমিটেড স্টোরেজ সুবিধা থাকছে না। ওই দিনটি থেকে ছবি ও ভিডিও রাখার জন্য শুধু ১৫ গিগাবাইট স্টোরেজ বিনামূল্যে পাওয়া যাবে।
সম্প্রতি গ্রাহকদের নোটিফিকেশনের মাধ্যমে পুনরায় মনে করিয়ে দিয়েছে গুগল। এও জানিয়েছে যে, নির্দিষ্ট পরিমাণের বেশি স্টোরিজ ব্যবহার করতে চাইলে বাড়তি ফি গুনতে হবে।

গুগল ফটোজের নতুন নীতিমালায় স্টোরেজ ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত তথ্যগুলো জেনে নেয়া যায়-

* যেসব গ্রাহক জুনের আগেই উচ্চমানের ছবি-ভিডিও ব্যাকআপ নিয়ে রেখেছেন, সেগুলো নতুন নীতিমালার আওতামুক্ত থাকবে।

* ১ জুন থেকে নতুন করে আপলোড দিলে বা ব্যাকআপ নিতে গেলে স্টোরেজ সীমার নীতি প্রযোজ্য হবে।

* আপনি একটা নির্দিষ্ট সময়ে কী পরিমান ছবি-ভিডিও ব্যাকআপ রাখেন, তা জানে গুগল। সেক্ষেত্রে আপনার ৮০ শতাংশ স্টোরেজ পূর্ণ হতে কেমন সময় লাগবে, তা জানা যাবে গুগল ফটোজে।

* আপনার গুগল ফটোসে যখন শুধুমাত্র ২০ শতাংশ স্টোরেজ খালি থাকবে, তখন থেকে নোটিফিকেশন ও জিমেইলে বার্তা পাঠিয়ে জানিয়ে দেয়া হবে।

* গুগল ফটোসকে নতুন ভাবে সাজিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বড় সাইজ ও অস্পষ্ট ছবিগুলোকে আলাদা করে দেখতে পারবেন এবং প্রয়োজনে মুছেও ফেলা যাবে।

* স্টোরেজ অপশন ব্যবহারকারীদের জন্য সহজ করে দেয়া হয়েছে। ছবির মান ঠিক রেখে ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণ আগের চেয়েও কার্যকর করা হয়েছে।

এক নিমিষে বন্ধ হবে মোবাইলে ‘বিরক্তিকর’ বার্তা

এ ধরনের বার্তা বন্ধ করতে একটি উপায় জানিয়েছে বিটিআরসি

মোবাইল অপারেটরগুলো গ্রাহকদের নতুন নতুন প্যাকেজ ও সেবা সম্পর্কে জানাতে খুদে বার্তা পাঠিয়ে থাকে। ঘন ঘন এমন বার্তায় বিরক্তিতে পড়েন অনেকেই। তবে এবার এ ধরনের বার্তা বন্ধ করতে একটি উপায় জানিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ ধরনের খুদে বার্তা বন্ধের উপায় জানায় বিটিআরসি।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, খুদে বার্তা বন্ধ করতে “ডু নট ডিস্টার্ব বা ডিএনডি” সেবা চালু হয়েছে। প্রচারমূলক খুদে বার্তা না পেতে চাইলে ইউএসডিডি কোড ডায়াল করে চালু করা যাবে এ সেবা।

বিটিআরসি আরও জানায়, মোবাইল অপারেটরদের নিত্যনতুন সেবা সম্পর্কে জানতে বাণিজ্যিক প্রচারণামূলক খুদে বার্তা সহায়ক ভূমিকা পালন করে। তবে ক্ষেত্রবিশেষে গ্রাহকদের কাছে এ ধরনের খুদে বার্তা প্রাপ্তি বিরক্তিকর বলে প্রতীয়মান হয়।

যেভাবে বন্ধ হবে খুদে বার্তা

গ্রামীণফোনে *১২১ * ১১০১#, বাংলালিংকে *১২১*৮*৬#, এবং রবি ও এয়ারটেলের ক্ষেত্রে *৭# ডায়াল করলে বাণিজ্যিক প্রচারণামূলক খুদে বার্তা বন্ধ হয়ে যাবে। 

৩৮ লাখ বাংলাদেশির ফেসবুক তথ্য ফাঁস

ফেসবুক জানিয়েছে, ফাঁস হওয়া এসব তথ্যের মাধ্যমে বিপদে পড়তে পারেন ব্যবহারকারীরা

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ফেসবুকের ৩৮ লাখের বেশি ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হয়েছে। শুধু বাংলাদেশই নয় বিশ্বের অন্তত ১০০টি দেশের প্রায় ৫৩ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি গ্রাহকের ফেসবুক তথ্য বেহাত হয়েছে। 

সংবাদমাধ্যম বিজনেস ইনসাইডারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের ১০৬টি দেশের ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ৩ কোটি ২০ লাখ, যুক্তরাজ্যের ১ কোটি ১০ লাখ এবং ভারতের ৬০ লাখেরও বেশি ফেসবুক ব্যবহারকারী তথ্য ফাঁসের তালিকায় রয়েছে।

অপরদিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আফগানিস্তানের ৫ লাখ ৫০ হাজার, অস্ট্রেলিয়ার ১২ লাখ, বাংলাদেশের ৩৮ লাখ, ব্রাজিলের ৮০ লাখ এবং ভারতের ৬১ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হয়েছে।

তথ্যগুলো ফাঁস করা হয়েছে একটি নিম্নমানের সাইবার নিরাপত্তা সংক্রান্ত ফোরামে। তথ্যের মধ্যে আছে ব্যবহারকারীর ফোন নম্বর, ফেসবুক আইডি, পুরো নাম, অবস্থান, জন্মতারিখ এবং জীবনবৃত্তান্ত। এমনকি ব্যবহারকারীদের ই-মেইল আইডি ফাঁস হওয়ার প্রমাণও মিলেছে।  

ফেসবুকের স্বীকারোক্তি, বিবৃতি

এদিকে, বিষয়ে সোমবার (৫ এপ্রিল) এ বিষয়ে একটি বিবৃতিও দিয়েছে ফেসবুক। প্রতিষ্ঠানটির দাবি, ২০১৯ সালে তারা সমস্যাটি শনাক্ত করেছিল এবং তখনই তা সমাধান করা হয়েছে। 

বিবৃতিতে ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলেন, “এটি পুরানো তথ্য, এ সম্পর্কে ২০১৯ সালেই একটি প্রতিবেদন করা হয়েছিল। আমরা ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে সমস্যাটি শনাক্ত করেছি এবং সেটি ঠিকও করেছি”, বলেন ফেসবুকের মুখপাত্র।

@dhakatribune.com

দারাজের নামে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ম্যালওয়্যার

ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম দারাজের নাম ব্যবহার করে বেশ কয়েকটি মেসেঞ্জার অ্যাপ্লিকেশন জুড়ে বিভ্রান্তি তৈরি করছে “দারেজ” (Darez) নামের “ম্যালওয়্যার” বা ভাইরাসযুক্ত একটি সফটওয়্যার

জনপ্রিয় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম দারাজের নাম ব্যবহার করে বেশ কয়েকটি মেসেঞ্জার অ্যাপ্লিকেশন জুড়ে বিভ্রান্তি তৈরি করছে “দারেজ” (Darez) নামের “ম্যালওয়্যার” বা ভাইরাসযুক্ত একটিসফটওয়্যার। 

“গিভিং গিফটস টু দারাজ সাপোর্টারস- ফ্রি গিফট ফর এভরিওয়ান” বা “দারেজ সমর্থকদের জন্য বিনামূল্যে উপহার” শিরোনামসহ একটি বিভ্রান্তিকর লিঙ্ক দারাজের প্রকৃত গ্রাহকদের ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবারসহ অন্যান্য মেসেজিং অ্যাপগুলোর মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

লিঙ্কটিতে একবার ক্লিক করলেই তা সরাসরি হ্যাকারদের ওই ব্যক্তির ডিভাইসে অনুপ্রবেশ করতে এবং তার ছবি, পরিচিতি এবং ব্যক্তিগত সকল গোপনীয় তথ্য হাতিয়ে নিতে সাহায্য করছে। আর এই পুরো ঘটনাটি ঘটছে “দারাজ” এর পরিবর্তে “দারেজ” ব্র্যান্ডের পরিবর্তিত নাম ব্যবহার করে।

খালিদ আরাফাত নামে একজন হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) ব্র্যান্ডের নাম বা শিরোনামের ভালোভাবে লক্ষ্য না করেই লিঙ্কটিতে ক্লিক করে ফেলেন।

“আমি ভেবেছিলাম এটা দারজের পাঠানো। কিন্তু লিঙ্কটি যখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে আমার অন্যান্য পরিচিতি মানুষের ইনবক্সে চলে যায় তখন বুঝতে পারি আমি হ্যাকারদের আমার ফোনে অ্যাক্সেস দিয়ে দিয়েছি।”

ব্যবহারকারীরা কোনো সন্দেহ ছাড়া সঠিক বানান লক্ষ্য না করেই হ্যাকাররা সুযোগ করে দিয়েছে। কারণ গ্রাহকদের বিভ্রান্ত করার জন্য দারাজের বানানের সাথে একটু পরিবর্তন ছাড়া হুবুহু একই লোগো এবং ইউআরএল ব্যবহার করা হয়েছে। 

“ম্যালওয়্যার ভাইরাস” সাধারণত কম্পিউটার বা মোবাইল ফোনের স্বাভাবিক কার্যকলাপ ব্যাহত করতে, গোপনীয় তথ্য সংগ্রহ করতে, সুরক্ষিত কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেমে অননুমোদিত অনুপ্রবেশ ঘটাতে বা অযাচিত বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে ব্যবহৃত হয়।

এছাড়াও ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করতে বা ব্যবহারকারীর উপর নজর রাখার উদ্দেশ্যেও গোপনে পরিচালনা করা হয় এই ভাইরাসটি।

লিঙ্কটিতে ক্লিক করলেই আইফোন-১২ জিতেছেন বলে জানানো হয় এবং পুরস্কার পাবার জন্য কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে বলা হয়।

জাহাঙ্গীর আলন নামে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী জানান, তিনি আইফোন-১২ জেতার পর প্রতিটি ধাপ অনুসরণ করেন। পরবর্তীতে দেখতে পান তার ফোন ব্যালেন্স ২০০ টাকার পরিবর্তে শূন্য হয়ে আছে।

আন্তর্জাতিক ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) কর্মকর্তাদের তথ্যানুযায়ী, দেশে প্রায় সাড়ে তিন কোটিরও বেশি হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী এবং প্রায় ২ কোটি ভাইবার ব্যবহারকারী রয়েছে।

এখন অবধি ম্যালওয়্যারটি কেবল ম্যাসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপ এবং ভাইবারে ছড়ানো হয়েছে। ভাইরাসটি মোবাইল ফোনের পরিচিতি তালিকা, আইপি (ইন্টারনেট প্রোটোকল) ঠিকানা, অবস্থান, ছবি ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করে যে কোনও ধরণের ক্ষতি করতে পারে বলে জানিয়েছে আইআইজি কর্মকর্তারা।

আইআইজি ফোরামের সভাপতি সরোয়ার আলম সিকদার ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, এ ধরণের লিঙ্ক সর্বদা হ্যাকারদের মাধ্যমে বিভিন্ন ওটিটি প্ল্যাটফর্মে আসে। যা পরবর্তীতে ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করে ব্ল্যাকমেল করার জন্য ব্যবহার করা হয়।

তিনি আরও বলেন, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে, কেননা একবার হ্যাক করে ফেললে এ বিষয়ে আর কোনো প্রতিকার করা সম্ভব নয়।  

 এ বিষয়ে দারাজ বাংলাদেশ  কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা ইতোমধ্যে তাদের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এই ম্যালওয়্যার ভাইরাস সম্পর্কে গ্রাহকদের সতর্ক করেছে।

এদিকে দারাজ কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে, যদি দারাজের নাম ব্যবহার করে এভাবে আরও গ্রাহককে হয়রানি করা হয় তাহলে ম্যালওয়্যার তৈরির জন্য দায়ী হ্যাকার গ্রুপের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেবে তারা।

@bangla.dhakatribune.com

ইন্টারনেট জগত সম্পর্কে ১০ টি আশ্চর্য সত্য

ছবি – Shutter Stock

আজকে আপনাদের সাথে শেয়ার করবো ইন্টারনেট জগত সম্পর্কে ১০ টি আশ্চর্য সত্য যা শুনলে হয়তো আপনি থমকে যাবেন। আমি নিজেও অবাক হয়ে গিয়েছিলাম কথা গুলো শুনে।

১) ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যাঃ

আমরা অনেকেই ইন্টারনেট ব্যবহার করি এবং জানি যে এটার গুরুত্ব অনেক। কিন্তু কেউ কি জানেন ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা কি হারে বাড়ছে?

২০০২ সালে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা ছিল মাত্র ৬০০ মিলিয়ন আর এখন সেটা এসে দাঁড়িয়েছে ২.২ বিলিয়নে। এক দশকে প্রায় ৩৬৭% বেড়েছে।

ভবিষ্যতে কত হবে সেটা ভাবতে পারছেন? এমন একদিন হয়তো আসবে যখন ইন্টারনেট যে ব্যবহার না করবে তাকে পাগল বলবে মানুষ। 😛

২) ফেসবুক সম্পর্কে একটি আশ্চর্য সত্যঃ

আমরা সবাই ফেসবুকে ছবিতে, স্ট্যাটাসে লাইক দেই কিন্তু আমরা কি জানি প্রতিদিন কতটা লাইক হচ্ছে? বর্তমানে ফেসবুকের অ্যাক্টিভ ব্যবহারকারির সংখ্যা হচ্ছে ১.২১ বিলিয়ন। সবাই প্রতিনিয়ত ছবি ভিডিও আপলোড করছে। এখন চলুন সেই আশ্চর্য সত্যটা জানি,

ফেসবুকে প্রতিদিন ৫০০ টেরাবাইট ডাটা আদান প্রদান হয়, প্রতিদিন প্রায় ২.৭ বিলিয়ন লাইক হয় এবং ৩০০ মিলিয়ন ছবি আপলোড হয়।

১০২৪ গিগাবাইটে হয় ১ টেরাবাইট,  প্রতিদিন ৫০০ টেরাবাইট ডাটা আদান প্রদান কি বাড়ির কাছে? আমি নিজেই প্রতিদিন অন্তত ১ এমবি আপলোড করি 😛 (Proud)

৩) স্প্যামিং সম্পর্কে একটি তথ্যঃ

স্প্যামাররা অনেক সচেতন! 😀 সোশাল মিডিয়াতে আমরা যেসব লিঙ্ক দেখি তার অনেক গুলোই স্প্যাম যেখানে ক্লিক করলে আপনার অনেক ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।

আমরা ফেসবুক টুইটার সহ অন্যান্য সোশাল মিডিয়াতে যেসব অ্যাকাউন্ট দেখি তার শতকরা ৪০ ভাগ অ্যাকাউন্ট স্প্যামারদের খোলা। সকল মেসেজের মধ্যে শতকরা ৮ ভাগ মেসেজ পাঠানো হয় স্প্যামারদের দ্বারা।

আমি কয়েকদিন পর পর মেসেজ পাই, আফ্রিকান কোন মেয়ের ছবি দেওয়া প্রোফাইল থেকে পাঠায়, এমন সুন্দর করে কথা বলে যেন আমি তার হাজার বছরের পরিচিত। এদের একটা লক্ষন হল আপনার সাথে ফেসবুকে কথা বলবে না বরং মেইল চাইবে। এরকম দেখলেই সাবধান হয়ে যাবেন, অনেকেই আছেন এমনকি একসময় আমি নিজেও এমনটা করতাম, যেকোনো মেয়ে দেখলেই চ্যাট করতে ইচ্ছা করতো 😛 তবে এখন থেকে সতর্ক থাকবেন, বাংলাদেশি মেয়েদের (হয়তো আপনার ভাই-ব্রাদার :D) সাথে চ্যাট করেন কিন্তু আফ্রিকান মেয়েদের সাথে কইরেন না।

৪) গুগল সার্চ সম্পর্কে একটি সত্যঃ

হেহেহেহে! মামার কথা আর কি বলবো, কদিন পর পর শুনি এই কম্পানিকে গুগল কিনে নিয়েছে ঐ কম্পানিকে গুগল কিনে নিয়েছে। সে শুধু বড় হচ্ছেই, এখন পর্যন্ত প্রায় ১৪৫ টার মতো কম্পানি গুগল কিনেছে/মার্জ করেছে। এই গুগল যে একদিন কত বড় হবে তা ভাবলেই আমার মাথা ঘুরে। 😀

প্রতি মাসে গুগল ১০০ বিলিয়ন সার্চ করে তার মানে হল প্রতি সেকেন্ডে প্রায় ৪০, ০০০ সার্চ রেসাল্ট আমাদেরকে দেয়।

যেদিন শুনেছিলাম যে পৃথিবীর প্রথম মোবাইল ফোন তৈরিকারী কম্পানি মটোরোলাকে কিনে নিয়েছে গুগল সেদিন আসলেই অবাক হয়েছিলাম। এত বড় একটা কম্পানি যেটা কিনতে গুগলকে গুনতে হয়েছে ১২.৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার। তাছাড়া ব্লগার, অ্যান্ড্রয়েড, ইউটিউব, প্লিঙ্ক, ওয়েয, পিকাসা এসব তো আছেই।

৫) ওয়েবকেম সম্পর্কে একটি মজার তথ্যঃ

প্রযুক্তির যত সব নতুন নতুন আবিষ্কার দেখি তার সবগুলোই কোন না কোন প্রয়োজনবোধ থেকে এসেছে। ওয়েবকেম নিঃসন্দেহে একটি আশ্চর্য আবিষ্কার যদিও এখন আমাদের কাছে তেমন আশ্চর্য মনে হয় না।

কেমব্রীজ ইউনিভার্সিটির কয়েকজন অলস ছাত্ররা ওয়েবকেম আবিষ্কার করেছে, তাদের উদ্দেশ্য ছিল নিজের রোমে বসে কফি রোমের খবর রাখা।

Trojan Room coffee pot একটি কফি রাখার পাত্র ছিল কেমব্রীজ ইউনিভার্সিটিতে। ওয়েবকেমটা বানানো হয়েছিল যেন সেই পাত্রের কফি শেষ হয়ে যাচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য যেন বার বার ঐ রোমে না যেতে হয়। ওদের মতো অলস হতে পারলেও ভালো 😛 অলসতার বহিঃপ্রকাশ হল আজকের নিরাপত্তা ব্যাবস্থায় ব্যাবহৃত শক্তিশালী ক্যামেরা।

Dr. Quentin Stafford-Fraser এবং Paul Jardetzky এই দুজন হলেন প্রথম ওয়েবকেমের নির্মাতা।

৬) প্রথম ওয়েবসাইটঃ

স্যার টিম বার্নাস লী লন্ডনে জন্ম নেওয়া একজন পদার্থবিধ। তিনি চিন্তা করেছিলেন এমন একটি হাইপারলিঙ্কের কথা যার দ্বারা পৃথিবীর সবাই যুক্ত থাকবে। সেই মহৎ ব্যক্তির অসাধারন আবিষ্কারকে মানুষ উন্নতির চরম পর্যায়ে নিয়ে গেছে।

info.cern.ch হল বিশ্বের প্রথম ডোমেইন/ওয়েব সার্ভার। ১৯৯১ সালের আগস্ট মাসের ৬ তারিখে এটি পাবলিশ করা হয়।

আপনারা ইচ্ছা করলে এখনি সেই ওয়েবসাইট থেকে ঘুরে আসতে পারেন (নাহ এখন না, টিউনটা শেষ করে নিন :P) সাইটটা এখনো আগের মতোই আছে, সাদামাটা করে রেখে দেওয়া হয়েছে যেন ইতিহাসটা অক্ষুন্ন থাকে।

৭) সবচেয়ে দামি ডোমেইনঃ

সহজ এবং সুন্দর নামের ডোমেইন সবার কাছেই পরিচিত। আমি নিজে Yahoo তেমন ব্যবহার না করলেও Yahoo নামের ডোমেইনটা আমার প্রিয়। এই সুন্দর এবং সহজে মনে রাখার মতো ডোমেইন গুলো বিক্রি হয় অনেক দামে। আসুন দেখি এখন পর্যন্ত পৃথিবীর সবচেয়ে দামি ডোমেইনের নাম গুলো।

সবচেয়ে দামি ডোমেইনের নাম হল insure.com দাম, ১৬ মিলিয়ন ডলার। দ্বিতীয় দামি ডোমেইনের নাম হল sex.com যার দাম ১৪ মিলিয়ন ডলার।

অনেকেই ভাবছেন তাহলে গুগল বা ফেসবুকের ডোমেইনের দাম কত? এখানে যে নাম দুইটা দিলাম সেগুল কোন কম্পানি না, শুধু একটা ওয়েবসাইট অ্যাড্রেস। দ্বিতীয় ডোমেইনটার দাম কেন যে এত বেশি হল সেটা হয়তো সবাই বুঝতে পেরেছেন। প্রথমটার কারন আমি নিজেও বুঝি নাই (insurance একটি ভালো বিজনেস এটা বুঝি :D)

৮) দেশভিত্তিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যাঃ

অন্যান্য দেশের কথা জানার আগে আসুন দেখে নেই আমাদের দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা কত।

  • ২০০৫ সালে বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির হার ছিল ০.২%
  • ২০০৬ সালে ১%
  • ২০০৭ সালে ১.৮%
  • ২০০৮ সালে ২.৫%
  • ২০০৯ সালে ৩.১%
  • ২০১০ সালে ৩.৭%
  • ২০১১ সালে ৫%
  • ২০১২ সালে ৬.৩%

ভারতে ২০১২ সালে ইন্টারনেট ব্যবহারকারির হার ছিল ১২.৬% এবং একই সালে পাকিস্তানে ছিল ১০%।

এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারির সংখ্যা রয়েছে Iceland-এ ৯৭.৮% ইউএসএ তে ৭৮.৩% চিনে ৩৮.৪% এবং সবচেয়ে কম ইন্টারনেট ব্যবহারকারী দেশ হল উত্তর কোরিয়া যেখানে ০% মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে।

আমি সবচেয়ে বেশি আশ্চর্য হয়েছিলাম এই তথ্যটা জেনে,  Iceland ছোট একটা দেশ অনেকে হয়তো এই দেশের নাম শুনেননি অথচ তারাই ইন্টারনেট ব্যবহারে এগিয়ে আছে। সমস্যা নেই আমারাও এগিয়ে জাচ্ছি, আমি তো ফেসবুকের নাম শুনেছিলাম কলেজে এসে কিন্তু এখন ক্লাস সিক্সের পলাপাইনও জানে এবং ফেসবুক ব্যবহার করে। 😀

৯) সবচেয়ে বেশি বই লেখকঃ

Philip M. Parker হলেন INSEAD নামের একটি বিজনেস স্কুলের একজন প্রফেসর। আমরা জানি বই লিখতে একটি টাইটেল লাগে, কি কি টপিক থাকবে তা লাগে,  একটা একক ISBN (International Standard Book Number) লাগে, কভার পেজ লাগে, বেক কভার লাগে আর কি! সবচেয়ে বড় কথা হল বই লিখতে জ্ঞান লাগে।

Philip M. Parker এখন পর্যন্ত প্রায় ২০০০০০ টি বই লিখেছেন। তিনি হলেন পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি বইয়ের লেখক।

এই বেক্তির এত কঠিন কাজকে সহজ করেছে কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট। ভদ্রলোক গণিত, জীববিজ্ঞান এবং অর্থনীতিতে অনার্স করেছেন (আমারতো একটা নিয়েই টানাটানি :P) বই লিখা সহজ কোন কাজ না, বই হল মানুষের দিক নির্দেশনা আর সেটা যদি ভুল দিকে যায় তাহলে সব শেষ!

১০) ইন্টারনেটের ওজনঃ

ইন্টারনেটেরও আবার ওজন আছে? শুনলে মাথা ঘুরবে না তো কি করবে? তবে কথাটা সত্যি, এই ইন্টারনেট জগতের একটা সত্যিকারের ওজন আছে। আর সেই ইন্টারনেটের ওজনের পরিমাণ শুনলে তো আপনার মাথা আরো ঘুরবে 😛

ইন্টারনেটে যেসব তথ্য আছে তার ওজন 2.0 × 10-7 ounces

গনিতবিদ কোন ভাই থাকলে একটু সাড়া দেন, আমার মাথা লাঠিমের মতো ঘুরতাসে 😛 যাই হোক এই ওজনটা সম্পর্কে একটু ধারনা আমি দিয়ে দেই ১ আউন্স=২৮.৩৪৯৫ গ্রাম। আমার মতো এবারো অনেকেই ওজনের পরিমাণটা বুঝবেন না 😀 আমার মতো অংকে কাচা ব্যক্তিবর্গের জন্য বাংলা হিসাব দিলাম 😛

একটা ক্ষুদ্রতম বালির কণার ওজন যতটুকু হবে ততটুকু ওজন হল ইন্টারনেট নামের এই দৈত্যটার।

উপসংহারঃ

অনেকগুলো আশ্চর্য তথ্য দিলাম, এবার বোনাস হিসেবে আরেকটি আশ্চর্য এবং খুবী দুঃখের খবর জানাতে চাই।

ইন্টারনেটে যেসব সার্চ হয় তার তিন ভাগের একভাগ হল খারাপ ভিডিও/ছবি নিয়ে :(ধারনা করা হয়েছে, ইন্টারনেটে যত ছবি আছে তার ৮০ ভাগ হল উলঙ্গ মেয়েদের ছবি। :'(

@https://www.techtunes.io/tuner/mad-singer-sohag


Post navigation